মেডিকেল কলেজে বিক্ষোভের মুখে স্বাস্থ্যমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য

মেডিকেল কলেজে বিক্ষোভের মুখে স্বাস্থ্যমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য


এদিন সকালে মালদা মেডিকেল কলেজ পরিদর্শনে আসেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য৷ প্রথমেই তিনি জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর ও মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনায় বসেন৷ আলোচনা শেষ করে তিনি মাতৃমা ভবন পরিদর্শন করতে যান৷ সেখান থেকে বেরিয়ে আসতেই তিনি উত্তেজিত জনতার বিক্ষোভের মুখে পড়েন৷ বিক্ষোভের হাত থেকে বেরিয়ে কোনও রকমে হাসপাতাল চত্বর ছাড়েন তিনি৷ তবে মন্ত্রী বেরিয়ে যাওয়ার পরেও ক্ষিপ্ত মানুষজনের হাতে ঘেরাও থাকেন জেলাশাসক কৌশিক ভট্টাচার্য৷


সাধারণ মানুষের বিক্ষোভের মুখে পড়ে কার্যত পালিয়ে যান স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী৷ বিক্ষুব্ধ মানুষ তাঁকে একাধিক অভিযোগ জানালেও কারোর সঙ্গেই কথা বলেননি তিনি৷ ছবিঃ মিসবাহুল হক

এই ঘটনায় এদিন মেডিকেল কলেজে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়ায়৷ মন্ত্রীকে কোনও রকমে গাড়িতে তুলে দেন নিরাপত্তাকর্মীরা৷ মেডিকেল কলেজে বৈঠক সেরে বেরিয়ে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, এটা তাঁর রুটিন ভিজিট ছিল৷ তিনি যেখানেই যান, সেখানকার স্বাস্থ্য পরিষেবা খতিয়ে দেখেন৷ মালদাতেও তাঁর ব্যতিক্রম হয়নি৷ মালদা মেডিকেলে চিকিৎসকদের গরহাজিরা নিয়ে মাঝেমধ্যেই প্রশ্ন ওঠে৷ এনিয়ে প্রশ্ন করলে চন্দ্রিমা বলেন, এব্যাপারে তাঁদের কাছে কোনও নির্দিষ্ট অভিযোগ নেই৷ অভিযোগ পেলে তা তাঁরা খতিয়ে দেখবেন৷ মেডিকেলে প্রয়োজনের তুলনায় কম চিকিৎসক প্রসঙ্গে তাঁর বক্তব্য, তাঁরা বারবার বলেন, ২০১১ সালের আগে একদিকে নিয়োগ যেমন বন্ধ ছিল, অন্যদিকে প্রচুর চিকিৎসক অবসর নিয়েছিলেন৷ ফলে এক্ষেত্রে একটি বড়ো ফাঁক তৈরি হয়৷ সেই ফাঁক বন্ধ করতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ২০১১ সাল থেকে চেষ্টা করে যাচ্ছেন৷ তিনি রাজ্যে অনেক নতুন মেডিকেল কলেজ করেছেন৷ আগামী শিক্ষাবর্ষ থেকে আরও ৫টি মেডিকেল কলেজে পঠনপাঠন শুরু হবে৷ মানুষকে পরিষেবা দেওয়ার জন্য মুখ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে যেভাবে কাজ হচ্ছে, তা যদি ২০১১ সালের আগে হত তবে এই সমস্যা দেখা দিত না৷ মাতৃমা থেকে বেরিয়ে সাধারণ মানুষের বিক্ষোভের মুখে পড়ে কার্যত পালিয়ে যান স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী৷ বিক্ষুব্ধ মানুষ তাঁকে একাধিক অভিযোগ জানালেও কারোর সঙ্গেই কথা বলেননি তিনি৷

মন্ত্রীকে কিছু বলতে না পেরে উপস্থিত মানুষজন জেলাশাসককে ঘেরাও করেন৷ তাঁদের সঙ্গে কথা বলার পর জেলাশাসক বলেন, এই মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে রোগীদের অসম্ভব চাপ থাকে৷ ফলে একটি বেডে দুই বা তার বেশি রোগী থাকতে বাধ্য হন৷ এখানে বেশিরভাগ বাচ্চাই সুস্থ রয়েছে৷ দু’চারটি বাচ্চা অসুস্থ থাকায় তাদের বাবা-মায়েরা চিন্তায় রয়েছেন৷ তা থেকেই কখনও কখনও মানুষ উত্তেজিত হয়ে পড়েন৷ এদিনের ঘটনার পিছনেও সেটাই কারণ৷

#Medical #DigitalDesk

হেডলাইন

প্রতিবেদন

জুলুমে রাস্তা সাফ হরিশ্চন্দ্রপুরে

দাপটের জন্য এলাকায় জুলুম সিং নামে পরিচিত৷ তাঁর ভয়ে রাস্তায় নোংরা ফেলার জো নেই কারোর। সকাল থেকে সন্ধে ঝাঁটা হাতে এলাকা পরিষ্কার রাখতে দেখা...

বিজ্ঞাপন

ফলো করুন
  • Facebook
  • Instagram
  • Twitter
  • YouTube
  • Pinterest

সব খবর ইনবক্সে!

প্রতিদিন খবরের আপডেট পেতে সাবস্ক্রাইব করুন

Aamader Malda Worldwide, the only media of your hometown and its thoughts. Here you can share and express your views and thoughts and you'll get here the essence of MALDAIYA CULT...

You can reach us via email or phone.  P +91 3512-260260  E response@aamadermalda.in

  • Facebook
  • Twitter
  • YouTube
  • Pinterest
  • Instagram
  • RSS

Copyright © 2020 Aamader Malda. All Rights Reserved.