top of page

অপারেশন থিয়েটারে চিকিৎসা করছেন দশম শ্রেণি উত্তীর্ণ, অভিযোগ দায়ের স্বাস্থ্য দফতরের

অভিযোগের ভিত্তিতে নার্সিংহোমে হানা দিয়ে হতবাক জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকদের। তাঁদের নজরে আসে অপারেশন থিয়েটারে রোগীদের দেখছেন মাধ্যমিক পাশ এক ব্যক্তি৷ তাঁকে সাহায্য করছেন বিএ পাশ এক মহিলা৷ এরপরেই ওই নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ ও অপারেশন থিয়েটারে থাকা দুজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়। অভিযোগের ভিত্তিতে ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে পুলিশ।


জানা গিয়েছে, বেশ কিছুদিন ধরে মিলকি একটি নার্সিংহোমের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ উঠছিল৷ সেই অভিযোগের ভিত্তিতে ওই নার্সিংহোমে হানা দেন জেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকরা৷ ওই নার্সিংহোমে পরিকাঠামো ও পরিসেবা প্রদানকারীর অভাব চোখে পড়ে তাঁদের। এরপরে অপারেশন থিয়েটারে যেতেই চক্ষু চড়কগাছ ওই প্রতিনিধিদলের৷ সেখানে তখন এক রোগীর চিকিৎসা করছিলেন এক চিকিৎসক, তাঁকে সাহায্য করছিলেন এক নার্স৷ যিনি চিকিৎসা করছিলেন তিনি নাকি মাধ্যমিক পাশ৷ আর তাঁকে সহযোগিতা করছিলেন যে মহিলা, তিনি বিএ পাশ৷ যদিও চিকিৎসক দাবি করতে থাকেন, তিনি ওই রোগীকে ক্যাথিডার পরাচ্ছিলেন৷ এরপরেই নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ ও ওই দু’জনের নামে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করা হয় স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষ থেকে। অভিযোগের ভিত্তিতে তাফাজ্জুল হক নামে ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে পুলিশ।


জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক পাপড়ি নায়েক জানান,

একাধিক অভিযোগের ভিত্তিতে মিলকির ওই নার্সিংহোমটিতে অভিযান চালানো হয়েছিল৷ সেখানে বেশ কিছু অসঙ্গতি নজরে এসেছে৷ ওই নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।


অতিরিক্ত জেলাশাসক (সাধারণ) বৈভব চৌধুরি জানান, প্রশাসনের কাছে একাধিক নার্সিংহোমের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ এসেছে৷ গত তিন-চার মাস ধরে নার্সিংহোমগুলির বিরুদ্ধে লাগাতার অভিযান চালানো হচ্ছে৷ শুধু চিকিৎসা পরিসেবা নয়, নার্সিংহোমের অন্যান্য ব্যবস্থাপনাগুলিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷ এখনও পর্যন্ত ১৫টি নার্সিংহোমকে ফাইন করা হয়েছে৷ আটটি নার্সিংহোমের লাইসেন্স সাময়িকভাবে বাতিল করা হয়েছে৷ প্রতিসপ্তাহে একটি করে নার্সিংহোমে হানা দেওয়া হচ্ছে।




আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

Comments


বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page