top of page

দশম শ্রেণির ছাত্রীর রহস্যমৃত্যু, দেহ মিলল চাষের জমিতে

ছাত্রীর পচাগলা দেহ উদ্ধারের ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল হরিশ্চন্দ্রপুরে। খবর পেয়ে ধানের জমি থেকে মৃতদেহটিকে উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে পুলিশ। এই ঘটনায় আপাতত একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে হরিশ্চন্দ্রপুর-২ ব্লকের দেগুণ এলাকায়।



মৃত ওই ছাত্রীর নাম মেহেরুন খাতুন (১৮)। বাড়ি হরিশ্চন্দ্রপুর-১ নম্বর ব্লকের রঙাইপুর গ্রামে। মেহেরুন চিতলীয়া উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী ছিল। পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গত দু’দিন ধরে মেহেরুন বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয়ে যায়। পরিবারের লোকজন বিভিন্ন জায়গায় মেহেরুনকে খুঁজে না পেয়ে হরিশ্চন্দ্রপুর থানায় মিসিং ডায়ারি করেন। আজ সকালে হরিশ্চন্দ্রপুর-২ নম্বর ব্লকের আলঙ্গি গ্রামের একটি ধানের জমিতে স্থানীয় কৃষকেরা মাটিতে পোতা মৃতদেহের একাংশ বেরিয়ে আসতে দেখেন। খবর দেওয়া হয় পুলিশে। হরিশ্চন্দ্রপুর থানার আইসি সঞ্জয়কুমার দাস ও ভালুকা ফাঁড়ির ইনচার্জ বিমলকুমার দাস ঘটনাস্থলে এসে মৃতদেহটি উদ্ধার করে ভালুকা ফাঁড়িতে নিয়ে আসে এবং পরে ময়নাতদন্ত করতে মালদা মেডিকেল কলেজে পাঠায়।


মৃত ছাত্রীর দাদা বলেন, নয় দিন আগে তাঁর বোন হঠাৎ নিখোঁজ হয়ে যায়। পরের দিন হরিশ্চন্দ্রপুর থানায় তাঁরা ডায়ারি করেন। তাঁদের সন্দেহ, চাঁচল থানার রানাঘাট পরানপুর এলাকার এক যুবকের সঙ্গে বোনের সম্পর্ক ছিল। হয়তো বোনকে ধর্ষণ করার পর খুন করে মাটিতে পুঁতে দেওয়া হয়েছে।


প্রাথমিকভাবে পুলিশের অনুমান প্রেমঘটিত কারণে ওই ছাত্রী খুন হয়ে থাকতে পারে। আপাতত একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।




টপিকঃ #মৃতদেহউদ্ধার

Comments


বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page