top of page

প্রেমিকের সঙ্গে জোট বেঁধে স্বামীকে খুন, ধৃত স্ত্রী সহ ৩

বারাসতের মনুয়া কাণ্ডের ছায়া মালদায়। পরকীয়ার জেরে খুন স্বামী। প্রায় দশদিন পর সেপটিক ট্যাঙ্ক থেকে উদ্ধার হল বস্তাবন্দি মৃতদেহ। এই ঘটনায় স্ত্রী-প্রেমিক সহ মোট তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে ইংরেজবাজারে।



মৃত ব্যক্তির নাম নাম সাদিকুল খান (৩৮)। বাড়ি ইংরেজবাজারের শোভানগর গ্রামপঞ্চায়েতের মোহনপুর গ্রামে। সাদিকুল পেশায় একজন নির্মাণকর্মী। জানা গিয়েছে, সাদিকুলের সঙ্গে ১০ বছর আগে বিয়ে হয় সারেফা বিবির। তাঁদের দুটি সন্তান রয়েছে। অভিযোগ, প্রতিবেশী যুবক নূর আলমের সঙ্গে চার বছর আগে বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক গড়ে ওঠে সারেফার। এনিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রায়শই ঝামেলা লেগে থাকত। এরপরই প্রেমিকের সঙ্গে মিলে স্বামীকে খুনের ছক কষে সরিফা। গত ১০ জানুয়ারি নিখোঁজ হয়ে যান সাদিকুল। সাদিকুলের খোঁজ না পেয়ে ১৬ তারিখ মিলকি পুলিশ ফাঁড়িতে নিখোঁজ ডায়েরি করে তাঁর পরিবারের লোকজন। ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ নূরের এক সঙ্গী লালচাঁদকে আটক করে জেরা করে। এরপরেই উঠে আসে সমস্ত তথ্য।



পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, স্বামীকে খুন করার উদ্দেশ্যে ছক কষে সারিফা ও নূর। এরপর সাদিকুলকে অপহরণ করে খুন করে সারেফা-নূর ও তার এক সঙ্গী। পরে মৃতদেহটি বস্তাবন্দী করে ফেলে দেওয়া হয় নূরের আত্মীয়ের বাড়ির সেপটিক ট্যাঙ্কে। গতকাল রাতে সেখান থেকে দেহ উদ্ধার করে মৃতদেহটিকে ময়নাতদন্তের জন্য মালদা মেডিকেল কলেজে পাঠায় পুলিশ। আজ সারেফা বিবি, নূর আলম ও লালচাঁদকে মালদা জেলা আদালতে পেশ করা হয়েছে।



আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page