top of page

জলের তোড়ে বাঁধে ফাটল, মহানন্দার পাড়ে বাড়ছে আতঙ্ক

অতি ভারী বর্ষণের জেরে উত্তরের সমস্ত নদী গুলি ফুলে-ফেঁপে উঠেছে। জলস্তর বেড়েছে মহানন্দারও। মহানন্দার জলস্তর বাড়ার সাথে সাথে ফাটল ধরেছে নদী বাঁধে। আতঙ্কে ঘুম উড়েছে নদী তীরবর্তী এলাকার বাসিন্দাদের।


মহানন্দার জলস্তর বৃদ্ধি হতেই ফাটল ধরতে শুরু করেছে নদী বাঁধে। ধীরে ধীরে নদী গর্ভে যেতে শুরু করেছে বোল্ডার। বিষয়টি এলাকায় চাউর হতেই আতঙ্ক ছড়িয়েছে চাঁচলের গালিমপুর, যদুপুর, ভবানীপুর, শ্রীপতিপুর এলাকায়। এলাকাবাসীর অভিযোগ, ২০১২ সালে ভাঙন রোধে বড়ো বড়ো পাথর দিয়ে বোল্ডার দেওয়া হয়েছিল। তারপর একাধিকবার বর্ষায় নদী ভাঙন হয়েছে। কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাঁধ মেরামতির কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। সরকারি আধিকারিকেরা পরিদর্শনে আসেন, কিন্তু বাঁধের কাজ হয় না। ২০১৭ সালে তারই ফল ভোগ করতে হয়েছিল স্থানীয় বাসিন্দাদের। সেই বছর বর্ষাতে প্লাবিত হয়েছিল গালিমপুর, যদুপুর, শ্রীপতিপুর ও ভবানীপুরের বিস্তীর্ণ এলাকা। এখনই বাঁধের কাজে হাত না দেওয়া হলে এবারও তেমনটাই হবে। যেভাবে বাঁধ ফাটল দেখা দিয়েছে তাতে কয়েকদিনের মধ্যে একেকটি করে বাড়ি নদী গর্ভে যেতে শুরু করবে।



ওই এলাকার বাসিন্দা মানোয়ার বিবি বলেন, অবিলম্বে বাঁধের সংস্কার করতে হবে। নইলে এক এক করে বেশ কয়েকটি গ্রাম জলে তলিয়ে যাবে। কখন বাড়ি নদীর তলায় চলে যাবে সেই আতঙ্কে দিন কাটছে আমাদের।




আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page