top of page

জেলায় আরও দু'জন, বিশ্বজুড়েই আক্রান্ত বাড়ছে, উদ্বেগে হু

গত ২৪ ঘণ্টায় মালদায় কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত হয়েছেন আরও দু’জন। স্বাস্থ্যবিভাগ সূত্রে জানা গেছে, নতুন আক্রান্তরা চাঁচল-১ ব্লকের বাসিন্দা।


বিশ্বের অধিকাংশ মানুষই যে কোনও মুহূর্তে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হতে পারেন। তাই ছ’মাসের বেশি সময় ধরে এই অতিমারি নিয়ে সতর্কতা অবলম্বন করে আসা হচ্ছে, এখন তা থেকে সরে দাঁড়ানোর পক্ষে সঠিক সময় নয়। জেনিভা থেকে ভিডিয়ো কনফারেন্সে জানালেন হু প্রধান টেড্রোস অ্যাডানম গেব্রিয়েসাস। উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি আরও জানান, সারা বিশ্বেই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলেছে। বাড়ছে মৃত্যুসংখ্যাও পাল্লা দিয়ে। তাই পরিস্থিতির সামান্য উন্নতি হলেই আত্মসন্তুষ্টির মনোভাব দেখানো উচিত নয়। বরং সতর্ক থাকা উচিত। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) আরও দাবি করেছেন, গোটা বিশ্বে পরিস্থিতির ক্রমশ অবনতি হচ্ছে।



মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত মালদা মেডিকেল কলেজে ৩৬টি নমুনার পরীক্ষায় দুইজনের রিপোর্ট ‘পজিটিভ’ পাওয়া যায়। এই রিপোর্টগুলি মালদা জেলার চাঁচলের। আক্রান্তরা চাঁচল-১ নম্বর ব্লকের শিহিপুর ও বৈরগাছি এলাকার বাসিন্দা। এখন পর্যন্ত চাঁচল-১ নম্বর ব্লকে মোট চারজন আক্রান্তের খোঁজ মিলল। আরও ২১৩টি নমুনার পরীক্ষা গতকাল শেষ হয় নি ফলে রিপোর্ট পাওয়া যায় নি। নতুন করে করোনা আক্রান্তদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে হরিশ্চন্দ্রপুর করোনা আইসোলেশন সেন্টারে ভরতি করা হয়েছে৷



নতুন আক্রান্তদের দু’জনই ভিনরাজ্য ফেরত শ্রমিক৷ উত্তরপ্রদেশ থেকে ফিরেছিল শিহিপুরের ব্যক্তি আর বৈরগাছি এলাকার আক্রান্ত ফিরেছিল মহারাষ্ট্র থেকে৷ বাড়ি ফিরে তারা সরকারি নির্দেশ মেনে ১৪ দিন সরকারি কোয়রান্টিন সেন্টারে ছিলেন৷ সেখান থেকে তারা ঘরে ফিরে এসেছিলেন চারদিন আগে৷ সেন্টারে থাকাকালীনই তাদের লালারসের নমুনা সংগ্রহ করা হয়৷



মালদা মেডিকেল কলেজ সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার মালদা মেডিকেল কলেজের ভাইরোলজি বিভাগে মালদা জেলার ২৮৩টি লালারসের নমুনা আসে। সাথে উত্তর দিনাজপুর থেকে ১২৫টি নমুনাও জমা হয়। মেডিকেল কলেজের পরীক্ষাগারে ‘ব্যাকলগ’-এর সংখ্যা এদিন ৫১৬টি। মালদা মেডিকেল কলেজের ভাইরোলজি বিভাগে এখন পর্যন্ত ২৩,৩০৬টি লালারসের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে৷



বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page