top of page

রাতভর বাঁধ পাহারায় গ্রামবাসী, সকাল হতেই মেরামতির কাজ শুরু

প্রবল বৃষ্টিতে বেড়েছে জলস্তর। মাছ চাষ করার জন্য মৎস্যজীবীরা বাঁধের স্লুইস গেট বন্ধ করে দিয়েছে৷ প্রবল জলের চাপে ভাঙতে চলেছে বাঁধ সহ কালভার্ট। আর সেটা হলেই শহর থেকে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে গ্রাম। আতঙ্কে রাত জেগে পাহারা দিচ্ছেন গ্রামবাসীরা। প্রশাসনের ওপর ভরসা না করতে পেরে গ্রামবাসীরা চাঁদা তুলে বাঁধ মেরামতের কাজে হাত লাগিয়েছেন। ঘটনাটি পুরাতন মালদার যাত্রাডাঙা ও বলাতুলির মাঝের এলাকার। বিষয়টি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন বিডিও।


যাত্রাডাঙা ও বলাতুলি গ্রামের মধ্যে বিশাল জলাশয়টি এলাকায় বড় বিল হিসেবে পরিচিত৷ বিলে মাছ চাষ করার জন্য মৎস্যজীবী সমবায়কে লিজ দিয়েছে প্রশাসন। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, গত দু’দিনের প্রবল বৃষ্টিতে বিলের জল ফুলে উঠেছে। অথচ মাছ চাষের জন্য বিলের দুটি স্লুইস গেট পুরোপুরি বন্ধ করে রাখা হয়েছে। জলের চাপ সহ্য করতে না পেরে বাঁধ ভাঙার উপক্রম হয়েছে। গতকাল সন্ধে থেকে গ্রামের লোকজন বাঁধ পাহারা দিচ্ছেন৷



যাত্রাডাঙা গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান জিসান আলি জানান, বিলে যারা মাছ চাষ করছে, তারাই এই পরিস্থিতি তৈরি করেছে৷ কালভার্ট বন্ধ থাকায় বাঁধ কেটে যাওয়ার পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল। গতকাল রাতে গ্রামবাসীরা বাঁধ পাহারা দিচ্ছিলেন। গতকাল থেকে আমিও এখানে আছি৷ বাঁধ রক্ষা করতে গ্রামবাসীরা পুলিশের উপস্থিতিতে নিজেদের টাকা খরচ করে কালভার্টের মুখ খুলেছেন৷ বাঁধ মেরামতির কিছু কাজও করা হয়েছে। বিষয়টি ব্লক ও জেলা প্রশাসনকে জানানো হয়েছে।


আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page