top of page

অস্বস্তির কাঁটা দূরে রাখতেই কি সভার সংখ্যা কমল অভিষেকের! চর্চা মালদায়

আর মোটে কয়েক ঘণ্টা৷ দক্ষিণ দিনাজপুরের গঙ্গারামপুর থেকে সদলবলে মালদায় পা রাখবেন রাজ্যের শাসকদলের সেকেন্ড ইন কম্যান্ড অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়৷ ইতিমধ্যেই দলের জেলা নেতৃত্ব সেনাবাহিনীর অ্যাটেনশন ভঙ্গিতে দাঁড়িয়ে৷ পান থেকে যেন চুন না খসে৷ কোথাও যেন কাঁটা আড়াল থেকে বেরিয়ে না আসে৷ মঙ্গলবার মালদা চষে বেড়াচ্ছেন দলের জেলা সভাপতি আব্দুর রহিম বকসি৷ সপার্ষদ৷ ভোট নয়, দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে না আসার কৌশল পইপই করে বাতলে দিচ্ছেন ব্লক স্তরের নেতা-কর্মীদের৷ কোনও বিরোধী নয়, কটাক্ষটা দলের একাংশেরই৷

কিন্তু শুধুই কি মালদা! তৃণমূলের ‘যুবরাজ’ রাহুল গান্ধির আদলে যে নবজোয়ার জনসংযোগ কোচবিহার থেকে শুরু করেছেন, তার পরতে পরতেই বেরিয়ে এসেছে দলীয় দ্বন্দ্ব৷ যেটা আগাম বুঝতে পারেনি ঘাসফুলের রাজনীতির কৌশল ঠিক করে দেওয়া আই প্যাক৷ কর্মসূচি যত নীচের দিকে নামছে, ততই নির্বাচনের মুখে শরীরে অস্বস্তির ঘাম বাড়ছে তাদের৷ তার উপর আবার সেই কর্মসূচিতেই নেতার পকেট মারছে আরেক নেতা৷ এ যেন একেবারে ল্যাজেগোবরে দশা৷ তাই আই প্যাকের পরামর্শে দলের শীর্ষ নেতৃত্বের সিদ্ধান্ত, এবার জনসভা কমাতে হবে, বাড়াতে হবে রোড শো৷ কোচবিহার, করণদিঘির মতো ঘটনা আর ঘটতে দেওয়া যাবে না৷ তাই প্রথমে ইটাহার, পরে গঙ্গারামপুরে জনসভা করার সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছেন যুবরাজ৷ মালদা জেলায় ঘোষিত ছ’টির জায়গায় মাত্র দুটি জনসভা করবেন তিনি৷ বুধবার রতুয়ার সামসীতে, পরদিন মানিকচকের এনায়েতপুরে৷ এছাড়া দু’দিন ধরে গোটা জেলাতেই তাঁর রোড শো৷


state-ruling-party-second-in-command-Abhishek-Banerjee-is-visiting-Malda
অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল চিত্র।

কেন জনসভার সংখ্যা কমল? শাসকদলেরই একটি মহল জানাচ্ছে, বর্তমানে জেলায় দলের যা অবস্থা, তাতে যে কোনও জায়গায় বিদ্রোহের আগুন জ্বলে উঠতে পারে৷ কাটমানি নিয়ে প্রকাশ্যেই মানুষের তোপের মুখে পড়তে পারেন দলের রাজ্য সম্পাদক৷ তাছাড়া এই মুহূর্তে প্রতিটি জনসভার মাঠ ভরানোটাও জেলা নেতৃত্বের কাছে চ্যালেঞ্জের৷ তার থেকে রোড শো অনেক সেফ৷ কারণ, সেখানে কাউকে অভিষেকের ধারেকাছে ঘেঁষতে দেবে না পুলিশ কিংবা তাঁর নিরাপত্তারক্ষীরা৷ একমাত্র অভিষেক চাইলেই কেউ তাঁর কাছে আসতে পারেন৷ তাছাড়া ভরা বৈশাখের রোদ মাথায় নিয়ে মানুষ বেশিক্ষণ খোলা রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকবে না৷ দলের কর্মী-সমর্থক কিংবা যাঁদের কিছু প্রাপ্তিযোগ হয়েছে, তাঁদের কথা আলাদা৷ তাঁরা কেউ ক্ষোভ প্রকাশ করবেন না বলেই মনে করছে আই প্যাক৷ একই ভাবনা শীর্ষ নেতৃত্বেরও৷

এনিয়ে প্রশ্ন করা হলে জেলা তৃণমূলের সভাপতি আব্দুর রহিম বকসি যাবতীয় জল্পনা উড়িয়ে দিয়ে দাবি করেন, জনসভা করে বেশি মানুষের কাছে পৌঁছোনো যায় না৷ বরং রোড শোয়ের মাধ্যমে অনেক বেশি মানুষের কাছে পৌঁছোনো যায়৷ মালদায় ছ’টি জনসভা করার সিদ্ধান্ত নিয়ে তাঁরাই ভুল করেছিলেন৷ সেই ভুল শুধরে নেওয়া হয়েছে৷ যেসব জায়গায় জনসভা হওয়ার কথা ছিল, প্রতিটি জায়গাতেই বিশাল বড়ো করে রোড শো করা হচ্ছে৷ তবে যতই ভালো করা যাক, বিরোধীরা বিরোধিতা করবেই৷ আর দলে থেকে যারা এনিয়ে প্রশ্ন করছে, তারা দলের কেউ নয়৷ দলের কর্মী হলে কেউ এসব কথা বলবে না৷


আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page