top of page

মহকুমাশাসকের পথে এগোনোর চ্যালেঞ্জ সুমালার

এবার মালদা জেলার দুই পুরসভার প্রশাসক বোর্ডে আমূল পরিবর্তন করল রাজ্য সরকার। দুই পুরসভার প্রশাসককেই বদলে দেওয়া হয়েছে। ইংরেজবাজার পুরসভার প্রশাসকের দায়িত্বে নিয়ে আসা হয়েছে ২৫ বছরের কাউন্সিলর সুমালা আগরওয়ালাকে। পুরাতন মালদা পুরসভায় সেই দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে বশিষ্ঠ ত্রিবেদীকে। তিনিও ২৫ বছর ওই পুরসভায় কাউন্সিলরের দায়িত্ব সামলেছেন। বশিষ্ঠবাবু আজ নতুন দায়িত্বভার গ্রহণ করেছেন। তবে বিদায়ি পুর প্রশাসক কার্তিক ঘোষ নয়, তাঁর হাতে দায়িত্বভার তুলে দিয়েছেন পুরসভার কার্যনির্বাহী আধিকারিক। আগামীকাল সুমালাদেবী নিজের দায়িত্বভার গ্রহণ করবেন বলে জানিয়েছেন।



রাজ্য সরকারের নির্দেশিকায় ইংরেজবাজার পুরসভার প্রশাসক পদ থেকে সদর মহকুমাশাসক সুরেশচন্দ্র রানোর জায়গায় বোর্ডের নতুন চেয়ারপার্সন করা হয়েছে ২ নম্বর ওয়ার্ডের বিদায়ি কাউন্সিলর সুমালা আগরওয়ালাকে। ভাইস চেয়ারপার্সন হয়েছেন চৈতালি ঘোষ। বোর্ডে রয়েছেন আরও চার সদস্য। তাঁরা হলেন অঞ্জু তিওয়ারি, আশিস কুণ্ডু, শুভদীপ সান্যাল ও শিক্ষাবিদ্ শক্তিপদ পাত্র। পুরাতন মালদা পুরসভার প্রশাসক হিসাবে কার্তিক ঘোষকে সরিয়ে সেই দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বিদায়ি কাউন্সিলর বশিষ্ঠ ত্রিবেদীকে। ভাইস চেয়ারপার্সন হয়েছেন চন্দনা হালদার। রয়েছেন আরও দু’জন সদস্য। পরিতোষ ঘোষ ও কল্যাণ রায়। কল্যাণবাবু ছাড়া বাকি তিনজনই আজ নিজেদের দায়িত্বভার গ্রহণ করেছেন।


সুমালা আগরওয়ালা বলেন, ‘এই পুর এলাকার সবচেয়ে বড় সমস্যা শহরবাসীর সুষ্ঠুভাবে রাস্তায় চলাচল। আমি সেই কাজটাই আগে করতে চাই। কিন্তু তার জন্য গরিব ফুটপাথ ব্যবসায়ীদের পেটে লাথি মারার বিরোধী আমি। এনিয়ে আমি সদর মহকুমাশাসকের সঙ্গে কথা বলব। তিনি শহরের উন্নয়নের জন্য বেশ কিছু ব্যবস্থা নিয়েছেন। আমি তাঁকে জানিয়ে দিয়েছি, তাঁর সাহায্য ছাড়া আমার কাজ করাটা একটু সমস্যার। তাঁর দেখানো পথেই শহরের উন্নয়ন করতে চাই আমি।’



অন্যদিকে, পুরাতন মালদা পুরসভার নয়া প্রশাসক বশিষ্ঠ ত্রিবেদী বলেন, ‘পুরসভা চালাতে সবার সাহায্য প্রয়োজন। আমি কার্তিক ঘোষ, বিভূতিভূষণ ঘোষ তো বটেই, পুর এলাকার উন্নয়নে প্রয়োজনে সিপিএমের প্রাক্তন পুরপ্রধান বিশ্বনাথ সুকুলের সঙ্গেও আলোচনা করব। তাঁর মতামত নেব। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কাজের ক্ষেত্রে কোনও দল কিংবা অন্য কিছু দেখেন না। তাঁর দেখানো পথেই আমি পুরসভা চালাতে চাই। পুরসভার বেশ কিছু ওয়ার্ডে পানীয় জলের সমস্যা সমাধানই আমার প্রথম কাজ।’


আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

Comments


বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page