ধামসা মাদলের বোলে সহরায় উৎসব

ধামসা মাদলের বোলে সহরায় উৎসব

ওঁরা আদিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষ৷জেলার বিভিন্ন প্রান্তের বিভিন্ন গ্রামে তাঁদের বাড়ি৷কিন্তু কর্মসূত্রে তাঁরা বর্তমানে জেলার ইংরেজবাজার ও পুরাতন মালদা এই দুই পুরসভা এলাকায় বসবাস করছেন৷বর্তমানে এইরকম পরিবারের সংখ্যা প্রায় ২৫০৷এই আদিবাসী সাঁওতাল সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড়ো উৎসব হল বাদনা পরব বা সহরায় উৎসব৷ছয়দিনের এই উৎসব গ্রামে গিয়ে পালন করা সম্ভব না হওয়ায় এই বছর তাঁরা খোদ ইংরেজবাজারের রথবাড়ি এলাকায় পালন করলেন৷আয়োজক ছিল মালদা আদিবাসী রিক্রিয়েশন ক্লাব৷এটি মূলত প্রকৃতিকে কৃতজ্ঞতা জানানোর উৎসব৷সহরায় পরবে পাঁচটি বিশেষ দিন- উম, দাকা, খুনটাও, জালি ও সাকরাত৷



সহরায়ের প্রথম দিন - উম


এই দিনে গ্রামের পুরুষরা সকালে স্নান করে পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন কাপড় পরিধান করে গ্রামের এক প্রান্তে মারাংবুরু-র উদ্দেশ্যে হাঁড়িয়া ও মুরগি উৎসর্গ করে৷তারপর সেই মুরগি রান্না করে গ্রামের সকলে মিলে খিচুড়ি বানিয়ে খাওয়াদাওয়া করে দিনের শেষে ‘গড়’ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সহরায়-এর শুভ সূচনা ঘটে৷

দ্বিতীয় দিন - দাকা


এই দিনে গ্রামের বাড়িতে প্রয়াত পূর্বপুরুষদের বিশেষভাবে স্মরণ করা হয়৷বাড়িতে আত্মীয় পরিজনদের ‘সান্দিশ’ সহ আগমন ঘটে৷এই দিনে মূলত আত্মীয় পরিজনদের নিয়েই খাওয়াদাওয়ার আয়োজন করা হয়ে থাকে৷

তৃতীয় দিন - খুনটাও


এই দিনে বাড়ির গৃহপালিত পশুর বন্দনা করা হয়ে থাকে৷ গ্রামের পুরুষরা এই দিনে বাড়ি বাড়ি গিয়ে গৃহপালিত পশুদের বিন্তি, বাঁঘেড় (একপ্রকার বন্দনা) দ্বারা ‘জাগাও’ করে৷গৃহপালিত পশুদের তেল ও সিঁদুর মাখানো হয়৷

চতুর্থ দিন হল জালি


এই দিনটি হল সহরায় উৎসবের সবচাইতে আনন্দের দিন৷এই দিনে গ্রামের পুরুষ ও মহিলারা একসঙ্গে প্রত্যেকের বাড়িতে হাজির হয়৷সেখানে চলে খাওয়াদাওয়া এবং ধামসা ও মাদলের সহযোগে নাচ ও গানে প্রত্যেকে মেতে ওঠে৷

পঞ্চম দিন হল হাকু কাটকম


এই দিনটি মাছ খাওয়ার দিন৷প্রত্যেক বাড়িতে মাছ রান্না করে খাওয়া হয়৷সন্ধ্যাবেলায় হয় সমবেত নাচ ও গান৷

সহরায়ের ষষ্ঠ ও শেষ দিনটি হল ‘সাকরাত’


ঐতিহাসিকভাবে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ এই দিনে গ্রামের পুরুষরা তিরধনুক ও অন্যান্য অস্ত্র নিয়ে শিকারের উদ্দেশ্যে বের হয়৷শিকার সাঙ্গ হলে গ্রামের একস্থানে কলাগাছ পুঁতে সেখানে তেলের পিঠে রেখে চলে কলাগাছকে নিশানা করে তিরবিদ্ধ করার কাজ৷দিনের শেষে শিকার করা মাংস রান্না করে খাওয়াদাওয়ার মধ্য দিয়ে সহরায় পরবের পরিসমাপ্তি ঘটে৷

আদিবাসী রিক্রিয়েশন ক্লাবের প্রভাত কিসুক বলেন যে, যদিও শহরে থেকে ছয়দিনের উৎসব পালন করা সম্ভব নয়৷ শেষদিনের সাকরাত অনুষ্ঠানটিও শহরে করা সম্ভব হয় না৷কিন্তু সমস্ত পরিবারগুলি একত্রে মিলিত হয়ে নাচ গান ও খাওয়াদাওয়া করে আনন্দে মেতে ওঠে৷


#SohorayUtsav

হেডলাইন

প্রতিবেদন

মহানন্দার উজান স্রোতে ভবানীপুরে অশনির ঘণ্টা বাজছে

ফি বছর বর্ষায় বেড়ে যায় মহানন্দার জলস্তর। স্রোতের আওয়াজ ঘুমন্ত গ্রামবাসীদের কানের পর্দায় যেন ধাক্কা দেয়৷ এবারও বেড়েছে মহানন্দার জল৷ খানিকটা..

বিজ্ঞাপন

ফলো করুন
  • Facebook
  • Instagram
  • Twitter
  • YouTube
  • Pinterest

সব খবর ইনবক্সে!

প্রতিদিন খবরের আপডেট পেতে সাবস্ক্রাইব করুন

Aamader Malda Worldwide, the only media of your hometown and its thoughts. Here you can share and express your views and thoughts and you'll get here the essence of MALDAIYA CULT...

You can reach us via email or phone.  P +91 3512-260260  E response@aamadermalda.in

  • Facebook
  • Twitter
  • YouTube
  • Pinterest
  • Instagram
  • RSS

Copyright © 2020 Aamader Malda. All Rights Reserved.