top of page

গুলি করে খুন তৃণমূল কর্মীকে, অভিযুক্ত সিপিএম-কংগ্রেস

এবার খুন হলেন এক তৃণমূল কর্মী৷ গতকাল রাতে ঘটনাটি ঘটেছে রতুয়া ২ ব্লকের শ্রীপুর ২ গ্রাম পঞ্চায়েতের কুমারগঞ্জ গ্রামে৷ এই ঘটনায় মৃতের পরিবার ৩০ জনের বিরুদ্ধে স্থানীয় পুখুরিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে৷ অভিযুক্তরা সবাই জোটকর্মী৷ পুলিশ আপাতত ১০ জনকে আটক করেছে৷ ঘটনার প্রেক্ষিতে এলাকায় তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়েছে৷



মৃতের নাম নয়ন মণ্ডল৷ বয়স মাত্র ২০৷ এলাকায় সক্রিয় তৃণমূল কর্মী হিসাবে পরিচিত তিনি৷ তিনি স্থানীয় রঘুনাথপুর গ্রামের বাসিন্দা৷ পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রতিদিনের মতো গতকাল রাতেও এলাকার তৃণমূল প্রার্থী সেরিনা বিবির নির্বাচনি প্রচার শেষ করে এক আত্মীয়ের বাড়ি গিয়েছিলেন নয়ন৷ রাত ১২টার দিকে সেখান থেকে মোটরবাইক নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন তিনি৷ মাঝরাস্তাতেই তাঁর পথ আটকায় দুষ্কৃতীরা৷ এরপর খুব কাছ থেকে তাঁকে গুলি করা হয়৷ গুলি লাগে তাঁর মাথায়৷ ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি৷ দুষ্কৃতীরা সেই সময় বোমাবাজিও করে বলে অভিযোগ৷ বোমার শব্দে গ্রামবাসীরা বাড়ি থেকে বেরিয়ে এলে দুষ্কৃতীরা সেখান থেকে পালিয়ে যায়৷ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যায় পুখুরিয়া থানার পুলিশ৷ নয়নের মৃতদেহ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যান পুলিশকর্মীরা৷ পরে ময়নাতদন্তের জন্য মৃতদেহটি মালদা মেডিকেলে পাঠানো হয়৷

নয়নের পরিবারের অভিযোগ, শ্রীপুর ২ গ্রাম পঞ্চায়েত কংগ্রেসের শক্ত ঘাঁটি৷ সেখানে তৃণমূল করার জন্য গতকাল সকালেই এলাকার কংগ্রেস ও সিপিএম কর্মীরা তাঁকে খুনের হুমকি দিয়েছিল৷ সেই হুমকি যে এত তাড়াতাড়ি সত্যি হবে তা ভাবতে পারেননি কেউ৷ এই ঘটনায় নয়নের পরিবারের পক্ষ থেকে এলাকার জোটকর্মী আবদুল কুদ্দুস, মাসুদ আলম, সাদেক আলি সহ ৩০ জনের বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে৷ পুখুরিয়া থানার পুলিশ জানিয়েছে, অভিযোগের ভিত্তিতে আপাতত ১০ জনকে আটক করা হয়েছে৷ তবে মূল অভিযুক্তরা পলাতক৷ তাদের খোঁজে তল্লাশি শুরু হয়েছে৷

এদিকে এদিন সকালে নয়নের মৃতদেহ দেখতে মালদা মেডিকেলে যান রাজ্যের নারী, শিশু ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রী শশী পাঁজা, কলকাতা কর্পোরেশনের মেয়র পারিষদ সদস্য অতীন ঘোষ ও জেলা তৃণমূল সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন৷ মোয়াজ্জেম সাহেব বলেন, নির্বাচনি প্রক্রিয়া শুরুর পর থেকেই মালদা জেলায় শান্তির আবহ ছিল৷ শ্রীপুর ২ গ্রাম পঞ্চায়েত এখন তাঁদের দখলে৷ নয়নের বাবা কিছুদিন আগেই কলকাতা পুলিশে চাকরিরত অবস্থায় মারা গিয়েছেন৷ সেই চাকরিটা নয়ন পেতেন৷ তার জন্য তিনি তৈরি হচ্ছিলেন৷ এবার শ্রীপুর ২ গ্রাম পঞ্চায়েত তাঁদের হাতে আসা শুধু সময়ের অপেক্ষা৷ সেকারণেই কংগ্রেস ও সিপিএম তাঁকে খুন করল৷ এতে সবাই মর্মাহত৷ অন্যদিকে অতীনবাবু বলেন, কংগ্রেস ও সিপিএমের অশুভ জোটকে ২০১৬ সালে মানুষ পরিত্যাগ করেছে৷ তারা আবার জোট বেঁধেছে৷ তারা বাংলাকে রক্তাক্ত করতে চাইছে৷ তাঁরা মৃত দলীয় কর্মীর পাশে রয়েছেন৷ দল নয়নের পরিবারের পাশে রয়েছে৷ অন্যদিকে রাজ্যের মন্ত্রী শশী পাঁজা এই ঘটনায় বলেন, শান্তিপূর্ণ মালদায় অশান্তি ছড়ানোর চেষ্টা চলছে৷ গতকাল সারাদিনই নয়নকে খুনের হুমকি দেওয়া হয়েছিল৷ রাতে তাকে শেষ পর্যন্ত খুন করা হয়েছে৷ তিনি এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছেন৷ গোটা ঘটনা শুভেন্দু অধিকারী সহ দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে জানানো হচ্ছে৷ এই রাজ্যে বিরোধীদের কোনও জায়গা নেই৷

যদিও জেলা কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক নরেন্দ্রনাথ তিওয়ারি বলেন, এই ঘটনা তৃণমূলের অন্তর্কোন্দলের ফসল৷ সারা রাজ্য জুড়েই মানুষ জানে, তাদের কোন্দলে কীভাবে খুন হচ্ছে৷ এই ঘটনার সঙ্গে কংগ্রেস জড়িত নয়৷


আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

ভিডিয়োঃ কৃতাঙ্ক


বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page