top of page

ক্ষতির মুখে চাষাবাদ, আগামী কয়েকদিনের মধ্যে ফের কালবৈশাখীর সম্ভাবনা

হঠাৎ কালবৈশাখীতে চাষের পাশাপাশি বাড়িঘরের ক্ষতি হয়েছে জেলার বেশ কয়েকটি ব্লকে। আবহাওয়া দফতরের তথ্য অনুযায়ী আগামী ৪ মে পর্যন্ত জেলায় ঝড়-বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সেক্ষেত্রে ফের ক্ষতির মুখোমুখি হতে পারে জেলাবাসীকে।


গতকাল রাত আটটা নাগাদ মালদা জেলায় ঝড় ও বৃষ্টি শুরু হয়। ইংরেজবাজারের সাটটারি এলাকায় বেশ কিছু বাড়িঘর ও একটি বেসরকারি স্কুলে ক্ষতি হয়। বামনগোলা ব্লকের প্রায় ৩০টি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ঝড়ের দাপটে জেলার বিভিন্ন প্রান্তে বৈদ্যুতিক সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। আজ সকাল থেকে ক্ষতিক্ষতির মেরামত শুরু করা হয়।


হঠাৎ কালবৈশাখীতে ধান ও আম চাষে ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা করছে জেলা কৃষি ও উদ্যানপালন দফতর। উদ্যানপালন ও খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ দফতরের ডেপুটি ডিরেক্টর সামন্ত লায়েক জানান, ‘গতকাল রাতে ইংরেজবাজার, মানিকচক, পুরাতন মালদা, গাজোল ও রতুয়া-২ নম্বর ব্লকে ঝড়ের প্রভাব দেখা গিয়েছে। তবে শুধু ইংরেজবাজার ব্লকে ঝড়ের বেশি প্রভাব দেখা গিয়েছে। ঝড়ে ৯ শতাংশ আমের ক্ষতি হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে খবর এসেছে। বিস্তারিত রিপোর্ট পাওয়ার পর ক্ষয়ক্ষতির সঠিক পরিমাণ বলা সম্ভব হবে।


জেলা কৃষি দফতরের ডেপুটি ডিরেক্টর সৌমেন দাস জানান,

ঝড়ের দাপটে বোরোধানের ফলন্ত গাছ মাটিতে শুয়ে পড়েছে। এই চাষের অবশ্যই ক্ষতি হবে। ইংরেজবাজার ছাড়া জেলার অন্য ব্লকগুলিতে ঝড় কিংবা শিলাবৃষ্টির বেশি প্রভাব পড়েনি। ঝড়ে বোরোধানের কিছুটা ক্ষতি হলেও এই বৃষ্টি পাটচাষে উপকারী হবে। ঝড়ে ক্ষয়ক্ষতির রিপোর্ট তৈরির কাজ শুরু হয়েছে। রিপোর্ট পেলেই ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানা যাবে।


জেলা আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, এই মুহূর্তে পশ্চিম থেকে গাঙ্গেয় উপকূল পর্যন্ত একটি নিম্নচাপ বিরাজ করছে। এর ফলে আগামী ৪ মে পর্যন্ত বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। গতকাল জেলায় ৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। তার সঙ্গে ৪৫ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া ছিল।




আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

Comentarios


বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page