top of page

মালদায় বিজেপির ভালো ফল হবে: মুকুল রায়

শেষ এসেছিলেন পুরাতন মালদার মঙ্গলবাড়িতে। রাজ্য তৃণমূল সভাপতি সুব্রত বকশির সঙ্গে এক মঞ্চে দাঁড়িয়ে এই জেলার তৃণমূল কর্মীদের উদ্বুদ্ধ করেছিলেন। এর মধ্যে অনেক জল গড়িয়েছে। দীর্ঘ সময় পর ফের মালদায় মুকুল রায়। তবে এবার গলায় গেরুয়া প্রতীক নিয়ে। মালদায় পা দিয়েই নাম না করে প্রাক্তন দলনেত্রীকে কড়া ভাষায় বিঁধেছেন তিনি। বলেন, একসময় কথায় কথায় মউ চুক্তি সম্পাদনের জন্য সিপিএম নেতা সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়কে তাঁরা মউ দাদা বলতেন। বেশিদিন আর নেই, যখন তাঁকে সবাই মউ দিদি বলবেন। তিনি সারা রাজ্যে কিছু করতে পারলেন না। আর এখন পাহাড়ে নাকি উন্নয়ন করছেন। এসব ধাপ্পা ছাড়া আর কিছু নয়।



তবে পঞ্চায়েত নির্বাচন প্রসঙ্গ উঠতেই খানিকটা যেন সতর্ক মুকুল। তিনি বলেন, অতীত অভিজ্ঞতা থেকে সবাই জানে, শাসকদলের বিরোধিতায় পঞ্চায়েত ভোটে হাজার হাজার আসনে বিরোধীরা প্রার্থীই দিতে পারে না। গোটা দেশেই সেই ছবি ধরা পড়ে। সেক্ষেত্রে ই-গভর্নেন্সের মাধ্যমে মনোনয়ন জমা হওয়াই ভালো পদ্ধতি। যদি কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় কিংবা অন্যান্য সরকারি কাজ ই-গর্ভনেন্সের মাধ্যমে হতে পারে, তবে এক্ষেত্রে আপত্তি কোথায়? তবে আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনে দলের ভালো ফল নিয়ে আশাবাদী মুকুল। তিনি বলেন, মালদা জেলায় বিজেপির যথেষ্ট ভালো ফল হবে। গত লোকসভা নির্বাচনে এই জেলার একটি আসনে বিজেপি যথেষ্ট ভালো ফল করেছিল। এই জেলায় বিজেপির একজন বিধায়কও আছেন। তাই এই জেলায় দলের ভবিষ্যৎ উজ্জ্বল।

মালদা জেলায় কংগ্রেসের অবস্থান প্রসঙ্গে মুকুলের বক্তব্য, যে দলের সভাপতি ভোটে হারার সময় হোলি খেলতে ইটালিতে চলে যান, সেই দল প্রসঙ্গে কিছু না বলাই ভালো। এখন ওই দলের আর কিছু নেই। বিজেপির এই নেতা জানান, আগামীকাল দক্ষিণ দিনাজপুরের বালুরঘাটে তিনি দুই দিনাজপুর ও মালদা জেলা নেতৃত্বের সঙ্গে নির্বাচনী বৈঠকে অংশ নেবেন। সেখানে বিভিন্ন দল থেকে প্রচুর নেতা-কর্মী বিজেপিতে যোগ দেবেন। তার আগে তিনি মালদা কলেজ অডিটোরিয়ামেও একটি সভায় অংশ নেবেন।

আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন


ভিডিয়োঃ ক্রিতাঙ্ক

বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page