top of page

সবজি ছুঁতে ছ্যাঁকা! প্রভাব পড়ছে মিড-ডে মিলে

অগ্নিমূল্য সবজি বাজার। অনাবৃষ্টির কারণেই সবজি দাম বেড়ে চলেছে বলে দাবি করছেন সবজি বিক্রেতারা। এর প্রভাব পড়েছে পড়ুয়াদের মিড-ডে মিলে। সরকারি বরাদ্দ অর্থে মিড-ডে মিল খাওয়াতে কোথাও সবজি পরিমাণ কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। কোথাও আবার সপ্তাহে এক-দুদিন মিড-ডে মিল রান্না করা হচ্ছে না বলে অভিযোগ। অনেক স্কুলে শিক্ষকরা আবার নিজের পকেট থেকে টাকা খসিয়ে বাচ্চাদের পুষ্টির যোগান দিচ্ছেন। তবে কতদিন এভাবে চালানো যাবে, তা নিয়ে নিশ্চিতভাবে কেউ কিছুই বলতে পারছেন না। বিষয়টি নিয়ে উদবিগ্ন রয়েছে জেলা প্রশাসন।


রতুয়া ১ নম্বর ব্লকের এক স্কুল শিক্ষক মহম্মদ আবদুল খালেক জানান, এখন বাজারে সবরকম সবজি পাওয়া যাচ্ছে না৷ যা পাওয়া যাচ্ছে, তারও দাম চড়া৷ মিড-ডে মিলের জন্য প্রতি বাচ্চার জন্য ৫ টাকা ৪৫ পয়সা বরাদ্দ। তার মধ্যেই পড়ুয়াদের খাবারের ব্যবস্থা করতে হয়৷ আপাতত স্কুলের শিক্ষকরা পকেট থেকে টাকা লাগিয়ে সবজির ব্যবস্থা করছেন। কিন্তু কতদিন এভাবে চলতে পারে?



আরেক শিক্ষক চন্দন সিংহ জানান,

বাজারে সবজির যেহারে দাম বেড়েছে তাতে আর কতদিন মিড-ডে মিলে সবজি দেওয়া যাবে তা বলা যাচ্ছে না। আপাতত আমাদের শিক্ষকরা নিজের পকেট থেকে টাকা দিয়ে বাচ্চাদের সবজি খাওয়াচ্ছেন। অনেক স্কুলে কিচেন গার্ডেন তৈরি করা হয়েছে। কিন্তু এককালীন টাকায় কিচেন গার্ডেন চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। সরকারের সমস্ত দিক বিচার করে দেখা উচিৎ।

জেলাশাসক নীতিন সিংহানিয়া জানান,

বাজারে সবজির দাম বেশি হওয়ায় বাচ্চাদের অল্প খাবার দেওয়ার কোনও অভিযোগ আসেনি। তবে বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখছি।

আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

コメント


বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page