top of page

অ্যাডভেঞ্চার ট্রিপে সিকিমে গিয়ে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন, চিন্তায় পরিবার

অ্যাডভেঞ্চার ট্রিপে সিকিমে গিয়েছিলেন। মঙ্গলবার মায়ের মোবাইলে ছবিও পাঠিয়েছেন। তারপর থেকে আর খোঁজ নেই ২৪ বছরের সুশান্তর। সংবাদমাধ্যমে দুর্যোগের খবর পেয়ে ছেলের মঙ্গল কামনায় প্রার্থনা করে দিন কাটছে পরিবারের।


রতুয়ার থানা পাড়ার বাসিন্দা সুশান্ত সাহা। তিনি এক নামী তথ্য প্রযুক্তি সংস্থার কর্মী। বাবা সুধীরচন্দ্র সাহা পেশায় ব্যবসায়ী৷ মা শেফালিদেবী গৃহবধূ৷ পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, শনিবার সকালে ট্রেনে চেপে শিলিগুড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন সুশান্ত৷ রবিবার সেখান থেকে বন্ধুদের সঙ্গে অ্যাডভেঞ্চার ট্রিপে মোটরবাইকে সিকিম যাওয়ার কথা ছিল৷ তবে বৃষ্টির জন্য রবিবার তাঁরা শিলিগুড়িতেই থেকে যান৷ সোমবার রাতে লাচেনের হোটেলে পৌঁছে বাড়িতে ফোন করেন সুশান্ত৷ মঙ্গলবার বিকেলে মায়ের মোবাইলে ছবি পাঠিয়েছিলেন৷ বুধবার সংবাদমাধ্যমে দুর্যোগের বিষয়টি জানতে পারেন পরিবারের লোকজন। কিন্তু আর সুশান্তের সঙ্গে যোগাযোগ হয়নি পরিবারের। ছেলের চিন্তায় রাতের ঘুম উড়েছে পরিবারের। এখন শুধু ছেলের জন্য প্রার্থনা করে চলেছে সাহা পরিবার।



সুশান্তর দাদা শুভঙ্কর জানান,

পাহাড়ে নেটওয়ার্কে সমস্যা থাকে। ভাইও ফোনে সেকথা জানিয়েছিল। মঙ্গলবার মায়ের মোবাইলে ভাই ছবিও পাঠিয়েছিল। ভাইরা গুরুদোংমার লেকে পৌঁছে গিয়েছে আমরা তা বুঝতে পারি। বুধবারের ঘটনার পর আমরা চিন্তায় পড়ে যাই৷ ভাইকে একাধিকবার ফোন করেও যোগাযোগ করতে পারিনি। গতকাল থানায় বিষয়টি জানানো হয়েছে। সিকিমে পরিচিতদের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানতে পেরেছি, ওখানে নেটওয়ার্কে সমস্যা রয়েছে। দুর্যোগে টুরিস্টদের সমস্যায় পড়তে হয়নি। ভাই দ্রুত বাড়ি ফিরে আসুক সেটাই প্রার্থনা করছি।

আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page