top of page

আধপেটা খেয়ে, সংসারের কাজ করে ৪৬২, উচ্চশিক্ষা নিয়ে চিন্তিত

অনলাইনে পড়াশোনার সুবিধার্থে স্মার্টফোন কেনার জন্য ১০ হাজার টাকা দিয়েছিল সরকার। কিন্তু সেই টাকা দিয়ে স্মার্টফোন কেনা হয়নি। পুরো টাকাটা সংসারের খরচে ব্যয় হয়েছে। সংসার চালাতে পড়াশোনার পাশাপাশি ডালি-ঝুড়ি তৈরি করেও উচ্চমাধ্যমিকে ৪৬২ নম্বর পেয়েছে জিতু চৌধুরি। ভালো রেজাল্ট করেও উচ্চশিক্ষার খরচের চিন্তায় ঘুম উড়েছে তার।


দারিয়াপুর হাইস্কুল থেকে এবার উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়েছিল জিতু। জিতু জানায়, খুব অভাবে পড়াশোনা করেছে সে। টাকা না থাকায় মাত্র একজন গৃহশিক্ষকের কাছে পড়ত। সেই স্যারও তার কাছ থেকে শিক্ষকতার পারিশ্রমিক নেননি। তার বাবা-মা দিনমজুরি করেন। মা বাড়িতে বাঁশের ডালি-ঝুড়ি তৈরি করে ভাত জোগাড় করেন। উচ্চমাধ্যমিকে সে ৪৬২ নম্বর পেয়েছে। এবার ভূগোল নিয়ে গবেষণা করতে চাই সে। কিন্তু টাকার অভাবে পড়াশোনা করতে পারবে কিনা তা জানা নেই তার। লকডাউনে অনলাইনে পড়াশোনার জন্য সরকার স্মার্টফোন কিনতে ১০ হাজার টাকা দিয়েছিল। কিন্তু সেই টাকা সংসারের প্রয়োজনেই খরচ হয়ে গিয়েছে। সরকারের কাছে তার আবেদন, উচ্চশিক্ষার জন্য তাকে যেন সহযোগিতা করা হয়।



জিতুর মা সীমা চৌধুরি বলেন, তিনি ভেবেছিলেন, আধপেটা খেয়ে, সারাদিন সংসারের কাজ করে মেয়ে ভালো ফল করতে পারবে না। কিন্তু ও করে দেখিয়েছে। এরপর মেয়েকে কীভাবে পড়াব? মেয়েটা না খেয়ে বহু দিন কাটিয়েছে। তিনি মেয়ের বিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু মেয়ে বিয়ে করবে না। ভিক্ষে করে হলেও পড়াশোনা করতে চাই তাঁর মেয়ে। এই পরিস্থিতিতে সাহায্য না পেলে মেয়েকে পড়ানো তাঁদের পক্ষে সম্ভব নয়।




আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

Commenti


বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page