top of page

মোবাইলে বুঁদ মেয়েকে বকাবকি করেছিলেন মা, অভিমানে আত্মঘাতী

পড়াশোনার জন্য মুখ্যমন্ত্রীর দেওয়া টাকায় কেনা স্মার্টফোনে সোশ্যাল মিডিয়াতেই ব্যস্ত থাকত এক উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থী৷ এর জন্য গতকাল মায়ের কাছে বকুনি খেয়েছিল সে৷ সেই অভিমানেই ঘরে রাখা কীটনাশক খেয়ে আত্মঘাতী হয়েছে ওই ছাত্রী৷ ঘটনাটি ঘটেছে গাজোল থানার রানিগঞ্জ গ্রামে৷ আজ মালদা মেডিকেল কলেজে ওই ছাত্রীর ময়নাতদন্ত করা হয়েছে৷



আত্মঘাতী ওই ছাত্রীর নাম বিউটি বালো (১৯)৷ রানিগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকায় তাদের বাড়ি৷ সে স্থানীয় রানিগঞ্জ কৃষ্ণচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থী৷ বাবা লালমোহন বালো প্রয়াত হয়েছেন৷ পেশায় কৃষক ছিলেন তিনি৷ মা টুবি বালো সাধারণ গৃহবধূ৷ বিউটি তাঁর ছোটো মেয়ে৷ একান্নবর্তী পরিবারের সদস্য তাঁরা৷ জানা গিয়েছে, করোনায় স্কুল বন্ধ হওয়ার পর থেকেই পড়াশোনায় অমনোযোগী হয়ে উঠেছিল বিউটি৷ তারই মধ্যে মুখ্যমন্ত্রীর দেওয়া টাকায় কিনে ফেলে একটি স্মার্টফোন৷ দিনের বেশিরভাগ সময় ওই ফোনে সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যস্ত থাকত সে৷ মোটেই পড়াশোনায় ওই ফোন ব্যবহার করত না৷ এনিয়ে গতকাল রাতে টুবিদেবী তাকে ভীষণ বকুনি দেন৷ তাতেই অভিমানে ঘরে রাখা কীটনাশক খেয়ে ফেলে সে৷ তড়িঘড়ি তাকে গাজোল গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷ সেখান থেকে মালদা মেডিকেল কলেজে নিয়ে আসা হলে চিকিৎসকরা বিউটিকে মৃত ঘোষণা করেন৷


বিউটির কাকাতো দাদা দেবেশ বালো বলেন, স্মার্টফোন হাতে পেয়ে বিউটির পড়াশোনা শিকেয় উঠেছিল৷ সবসময় ওই ফোনে সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যস্ত থাকত৷ এদিকে সামনে ওর উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা৷ এনিয়ে গতকাল রাতে কাকিমা ওকে বকাবকি করেন৷ তাতেই অভিমানে সে কীটনাশক পান করে আত্মঘাতী হয়৷



আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

Comments


বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page