top of page

চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা, অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা

প্রাইমারি শিক্ষকের চাকরি পাইয়ে দেওয়ার নামে লক্ষ লক্ষ টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠল তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ওই তৃণমূল নেতা। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত সাপেক্ষে যথাযথ ব্যবস্থার নেওয়ার আবেদন জানিয়েছেন শাসকদলের রাজ্যনেতা কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরি।


হরিশ্চন্দ্রপুরের প্রভাবশালী তৃণমূল নেতা, ডুমুরতলির বাসিন্দা তৈমুর রহমান। তিনি আবার শাসকদলের প্রাক্তন জেলা সাধারণ সম্পাদক। অভিযোগ, প্রাইমারি শিক্ষকের চাকরি দেওয়ার নাম করে ওই এলাকার দুই যুবক কৃষ্ণ মহালদার ও বিষ্ণু মহালদারের থেকে ৬ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা নেন দুই মহিলা তৃণমূল কর্মী নিভা মহরি ও উৎপলা পাসোয়ান। সেই টাকা তৈমুর রহমানের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল। দীর্ঘদিন পরেও চাকরি না পাওয়ায় ওই দুই যুবক প্রথমে দুই মহিলা তৃণমূল কর্মী, পরে তৈমুর সাহেবের কাছে টাকা ফেরত চান। কিন্তু কোনও ফল না মেলায় শেষে তাঁরা পুলিশে অভিযোগ জানান। পুলিশের উপস্থিতিতে তৈমুর সাহেব তাঁদের টাকা ফেরত দেওয়ার কথা জানান। ৩ লক্ষ ১০ হাজার টাকা ফেরত দেওয়ার পর বাকি টাকা না দেওয়ার কথা সাফ জানান তৈমুর সাহেব। পরে টাকা চাইতে গেলে দুই যুবককে প্রাণে মারার হুমকিও দেওয়া হয় বলেও অভিযোগ।


বিষ্ণু জানান, তাঁরা দুই ভাই খেলাধুলো করেন। বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় দৌড়ে পদকও পেয়েছেন। খেলোয়াড় কোটায় প্রাইমারির চাকরি করে দেওয়ার কথা বলে দুই মহিলা তৃণমূল কর্মী তাঁদের থেকে ৬ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। তাঁরা একটি পুকুর বিক্রি করে সেই টাকা তাঁদের হাতে তুলে দেন। সেই টাকা ওই দুই মহিলা স্থানীয় তৃণমূল নেতা তৈমুর রহমানের কাছে দেন। কিন্তু টাকা দেওয়ার দীর্ঘদিন পরেও চাকরি না হওয়ায় তাঁরা টাকা ফেরত চান। ৩ লক্ষ ১০ হাজার টাকা ফেরত দেন তাঁরা। তারপরে বাকি টাকা চাইতে গেলে তাঁদের হুমকি দেওয়া হচ্ছে।



তৈমুর রহমান জানান, ভিত্তিহীন অভিযোগ। পঞ্চায়েত ভোটের আগে তৃণমূল সরকারকে বদনাম করতে বিজেপি এসব ষড়যন্ত্র করছে। ঘটনা প্রসঙ্গে তৃণমূলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরি জানান, দলের নাম ভাঙিয়ে কিছু লোক সাধারণ মানুষের ক্ষতি করছে। এসব বরদাস্ত করা হবে না। ঘটনার যথাযথ তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার আবেদন প্রশাসনের কাছে দলীয়ভাবে জানানো হবে।




আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page