বানভাসি আশঙ্কায় মালদা

বানভাসি আশঙ্কায় মালদা

এবার পুজোয় আর নতুন জামাকাপড় হবে না ওদের৷ আগ্রাসী গঙ্গা যে সব কিছুই গিলে নিয়েছে৷ কারও ভিটেমাটি তলিয়ে গিয়েছে নদীগর্ভে, কারও মাথা গোঁজার শেষ সম্বলটাও জলের তোড়ে ভেসে যাওয়ার প্রহর গুনছে৷ কয়েক দিন আগেও যেখানে কালভার্টটা কালিয়াচক-৩ নম্বর ব্লকের সঙ্গে ধুলিয়ানের সংযোগ রক্ষা করছিল, এখন সেখান দিয়েই প্রবল স্রোতে বয়ে চলেছে গঙ্গা৷ জল ঢুকছে একের পর এক গ্রামে৷ স্কুল, বাড়ি জলের তলায় প্রায় সব কিছুই৷ আর কটা দিনই বা বাকি পুজোর, ঠিক এই সময় এমন পরিস্থিতিতে দিশেহারা শুধু কালিয়াচক নয় মানিকচক ও রতুয়ার বিস্তীর্ণ এলাকার মানুষও৷



উৎসবের মরশুমে এমন বিপর্যয় কল্পনাতেও আসেনি কারও৷ মানিকচকের জোতপাট্টার অসংরক্ষিত এলাকায় হাজার হাজার পরিবার জলবন্দি অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন৷ গঙ্গা চরম বিপদসীমার ওপর দিয়ে বইছে৷ ফুঁসছে কালিন্দ্রী, ফুলহর, মহানন্দাও৷ আশঙ্কা বহুগুণ বাড়িতে আকাশ কালো করে এসেছে৷ গ্রাম মালদার বিশাল এলাকা তো ডুবেইছে, এবার পুজোয় শহরও ভাসবে না তো? পুজো উদ্যোক্তাদের এখন এই চিন্তাই কুরে কুরে খাচ্ছে৷ শেষ মুহূর্তের কাজ নিয়ে উদ্বেগে রয়েছেন মৃৎশিল্পীরাও৷ স্যাঁতস্যাঁতে আবহাওয়ায় মূর্তি শোকাবার নয়! আতঙ্কে রাতের ঘুম উড়েছে মহানন্দার দুই পাড়েই৷ পুরাতন মালদার সাহাপুরে নদী ঘেঁষে বাস ডলি মণ্ডলের৷ লোকের বাড়ি খেটে সংসার চলে কোনোরকমে৷ মহানন্দায় আবার জল বাড়ছে৷ যে কোনো সময় বাড়ি ডুবতে পারে৷ তাই মালপত্র নিয়ে আপাতত অস্থায়ী আস্তানাই ঠিকানা৷ একই অবস্থা এপারের বালুচরে৷


গত কয়েকদিন ক্রমাগত বেড়েছে গঙ্গার জল৷ গোপালপুরের কামালতিপুরে নদীবাঁধের অবস্থা বিপজ্জনক৷ দ্রুত বাঁধ মেরামত না করলে বড়োসড়ো অঘটন ঘটতে পারে যে কোনো সময়৷ তবে জেলা সেচদপ্তরের নির্বাহী বাস্তুকার প্রণবকুমার সামন্ত কিছুটা আশার বাণী শুনিয়েছেন৷ তিনি বলেন আপাতত স্থির রয়েছে গঙ্গা৷ এবার জল কমতে পারে৷ তবে জল কমার অর্থ আবার ভাঙনের আশঙ্কা৷ ফলে হাজার হাজার দুর্গত পরিবার উদ্বেগে সময় কাটাচ্ছেন৷ এদিকে বন্যাদুর্গত এলাকা নিয়ে খোঁজখবর নিয়েছেন জেলা সভাধিপতি গৌরচন্দ্র মণ্ডল৷ মানিকচকে দুর্গত এলাকায় গিয়েছেন স্থানীয় বিধায়ক মোত্তাকিন আলম৷ আবার রতুয়ার দুর্গত এলাকায় গিয়েছেন সাংসদ খগেন মুর্মু৷

গঙ্গা যখন কালিয়াচক মানিকচকের বিশাল এলাকাকে ভাসিয়েছে, তখন বিধ্বংসী অবস্থা ফুলহরেরও৷ ফুলহরের জল প্লাবিত হয়েছে মহানন্দাটোলা ও বিলাইমরার বেশ কিছু এলাকাও৷ মানিকচকের রামনগর প্রাথমিক স্কুলে যাওয়ার রাস্তার ওপর দিয়ে জল বইছে৷ এই পরিস্থিতিতে পড়ুয়াদের স্কুলে না নিয়ে যাওয়াই ভালো বলে মনে করছেন প্রশাসন৷ তাই অনির্দিষ্টকালের জন্য স্কুল আপাতত বন্ধ৷


চলতি মরশুমে দু’দুবার বন্যার কবলে পড়ল কালিয়াচক ও রতুয়ার বিস্তীর্ণ এলাকা৷ বন্যাদুর্গত এলাকায় ত্রাণ ও নৌকা নিয়ে কিছুটা হলেও ক্ষোভ রয়েছে৷ তবে পরিস্থিতির ওপর কড়া নজর রয়েছে জেলা প্রশাসনের৷ বিহারের নদীতে জল বাড়লে বা আরও বৃষ্টি হলে পরিস্থিতি ঘোরালো হয়ে উঠতে পারে৷ পুজোর মরশুমে এমন পরিস্থিতিতে উদ্বিগ্ন ব্যবসায়ীরাও৷

হেডলাইন

প্রতিবেদন

কোয়রান্টিন সেন্টারে জন্মদিনের পার্টি, নজির গড়ল দীপান্বিতা

জন্মদিনের অনুষ্ঠানে বন্ধুদের বাড়িতে ডেকে খাওয়ানো নয়, পরিযায়ী শ্রমিকদের মধ্যে খাবার বিতরণ করে নজির সৃষ্টি করল ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রী। গত...

বিজ্ঞাপন

ফলো করুন
  • Facebook
  • Instagram
  • Twitter
  • YouTube
  • Pinterest

সব খবর ইনবক্সে!

প্রতিদিন খবরের আপডেট পেতে সাবস্ক্রাইব করুন

Aamader Malda Worldwide, the only media of your hometown and its thoughts. Here you can share and express your views and thoughts and you'll get here the essence of MALDAIYA CULT...

You can reach us via email or phone.  P +91 3512-260260  E response@aamadermalda.in

  • Facebook
  • Twitter
  • YouTube
  • Pinterest
  • Instagram
  • RSS

Copyright © 2020 Aamader Malda. All Rights Reserved.