top of page

পুরভোটে দু-তিনটি আসনেও জয় পাবে না তৃণমূল, বললেন জনৈক কাউন্সিলর

জেলার দুই পুরসভার চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে আগামী পুরভোট হলে দুটি পুরসভাতেই দুই তিনটি আসনেও জয় পাবে না। অনাস্থার পরিপ্রেক্ষিতে কলকাতার মিটিংয়ের পরে শহরে ফিরে এই মন্তব্য করলেন বশিষ্ঠ ত্রিবেদী। তাঁর এই মন্তব্যে হইচই পড়ে গিয়েছে রাজনৈতিক মহলে।



উল্লেখ্য, ইংরেজবাজার ও পুরাতন মালদার চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা নিয়ে আসেন দুই পুরসভার সিংহভাগ তৃণমূল কাউন্সিলর৷ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে অস্বস্তিতে পড়ে তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব৷ তড়িঘড়ি জেলায় পাঠানো হয় দায়িত্বপ্রাপ্ত দলীয় অবজারভার গোলাম রব্বানিকে৷ জেলা সভানেত্রী ও অবজারভার অনাস্থাকারী কাউন্সিলরদের সঙ্গে বৈঠক করেও সমস্যার সমাধান করতে পারেননি। এরপরেই দুই পুরসভার সমস্ত দলীয় কাউন্সিলরদের কলকাতায় মিটিং-এ ডাক দেয় রাজ্য নেতৃত্ব। গতকাল সন্ধেয় সেই মিটিংয়ের পরে জেলায় ফিরেই বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন বৈশিষ্ঠবাবু।


তিনি বলেন, অনাস্থা ডাকার পর প্রথমে জেলা নেতৃত্ব কাউন্সিলরদের তলব করে৷ সেখানে অবজারভার গোলাম রব্বানি ও জেলা তৃণমূল সভানেত্রী মৌসম নূর সকলের কথা শোনেন৷ অনাস্থা নিয়ে প্রত্যেক কাউন্সিলরের সঙ্গে আলাদা আলাদা করে কথা বলেন তাঁরা৷ প্রত্যেক কাউন্সিলরই কার্তিক ঘোষের বিরুদ্ধে কথা বলেন৷ তখনই দুই পুরসভার কাউন্সিলরদের নিয়ে কলকাতায় বসার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর আগেও আমরা কার্তিক ঘোষের বিরুদ্ধে দলে অনাস্থা প্রস্তাব নিয়ে এসেছিলাম৷ কিন্তু তখন কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি৷ কলকাতার বৈঠকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, দুই পুরসভাতেই বিক্ষুব্ধ কাউন্সিলর ও দলের শহর সভাপতিকে নিয়ে একটি কমিটি গঠন করতে হবে৷ সেই কমিটি সবার অভিযোগ শুনবে৷ পুরমন্ত্রী তাঁদের জানান, দুই পুরসভার চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে যে সকল অভিযোগ উঠেছে, তা তদন্ত করে দেখার জন্য কমিটি গঠিত হবে৷ তদন্তে কেউ দোষী প্রমাণিত হলে কাউকে ছেড়ে কথা বলা হবে না৷ বর্তমান পরিস্থিতি অনুযায়ী, এই দুই চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে পুরভোট ভোট হলে দুটি পুরসভাতেই ২-৩টি আসনেও জয় পাবে না তৃণমূল। তাঁর দলকে গুরুত্ব দিয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, দল তাঁদের কতটা গুরুত্ব দেবে সেটা দেখার অপেক্ষায় রয়েছেন তাঁরা।


প্রতিদিন মালদার টাটকা নিউজ হোয়াটস্ অ্যাপে পেতে ক্লিক করুন

বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page