top of page

গ্রেফতারির পরেও ধর্ষণের অভিযোগ তুলতে হুমকি

অভিযুক্ত গ্রেফতার হওয়ার পর ধর্ষণের অভিযোগ না তুললে প্রাণে মারার হুমকি। পুলিশের দ্বারস্থ পরিবারের লোকজন। তৃণমূলের নাম করে হুমকি দিচ্ছে বিজেপি, দাবি তৃণমূল নেতৃত্বের। আতঙ্কে পুলিশের দ্বারস্থ নির্যাতিতা পরিবার।


উল্লেখ্য, প্রায় পাঁচ মাস আগে নাবালিকাকে ছুরি দেখিয়ে ধর্ষণ করে হরিশ্চন্দ্রপুরের এক নাবালক। প্রাণের ভয়ে সেই ঘটনা কাউকে বলতে পারেনি ওই নাবালিকা। অন্তঃসত্ত্বা হয়ে যাওয়ার পর বিষয়টি সকলে বুঝতে পারেন। এরপরেই পুলিশে অভিযোগ দায়ের করা হয়। পুলিশে অভিযোগের বিষয়টি জানতে পেরে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায় অভিযুক্ত। এদিকে, শাসকদলের মাতব্বররা নির্যাতিতার পরিবারকে অভিযোগ তুলে গ্রামে সালিশি সভায় বিষয়টি মিটিয়ে নেওয়ার চাপ দিচ্ছিল। অবশেষে গত বুধবার রাতে বাড়ি থেকে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে পুলিশ। অভিযোগ, এরপর থেকেই অভিযোগ প্রত্যাহারের জন্য পরিবারের লোকদের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। অভিযোগ প্রত্যাহার না করলে প্রাণে মারার হুমকি বিষয়টি পুলিশকে জানিয়েছে নির্যাতিতার পরিবার। খবর পেয়েই রবিবার নাবালিকার বাড়িতে যান জেলা তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক বুলবুল খান। সঙ্গে ছিলেন তৃণমূল অঞ্চল চেয়ারম্যান সঞ্জীব গুপ্তা। তাঁদের কাছেও আশঙ্কার কথা জানিয়েছেন নাবালিকার পরিবার।



নাবালিকার মা বলেন, আমরা আতঙ্কে বাড়ি থেকে বের হতে পারছি না। কিন্তু স্বামীকে ভ্যান নিয়ে বাইরে যেতে হয়। নইলে খাবার জুটবে না। অভিযোগ তোলার জন্য ক্রমাগত প্রাণে মারার হুমকি দেওয়া হচ্ছে। ওর কিছু হলে আমাদের পথে বসতে হবে।





তৃণমূল জেলা সাধারণ সম্পাদক বুলবুল খান বলেন, জেলা নেতৃত্বের নির্দেশেই নাবালিকার পরিবারের সঙ্গে দেখা করেছি। তৃণমূলের লোকজন হুমকি দিচ্ছে এটা ঠিক নয়। এটা বিজেপির ষড়যন্ত্র। কিছু লোক তৃণমূলের নাম করে এসব করছে বলে জানতে পেরেছি। যারা হুমকি দিচ্ছে তাদের চিহ্নিত করে পুলিশকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ করার আবেদনও করেছি।


বিজেপি মণ্ডল সভাপতি রুপেশ আগরওয়ালা বলেন, বিজেপি এই ধরনের সংস্কৃতিতে বিশ্বাস করে না। তৃণমূল নেতারা বারবার কেন ধর্ষিতার বাড়ি যাচ্ছে। নিশ্চয় অভিযোগের সঙ্গে তাদের কোনও যোগ আছে।


আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

Komentar


বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page