top of page

দলীয় ব্লক সভাপতির বিরুদ্ধে কাটমানি দাবির অভিযোগ তৃণমূলের

দলীয় ব্লক সভাপতির বিরুদ্ধে কাটমানি চাওয়ার অভিযোগ তুলে গ্রামপঞ্চায়েতের সামনে বিক্ষোভ পঞ্চায়েতের তৃণমূল সদস্যরা। সোমবার ঘটনাটি ঘটেছে হরিশ্চন্দ্রপুর-২ ব্লকের দৌলতনগর গ্রামপঞ্চায়েতে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়িয়েছে ওই এলাকায়।


দৌলতনগর গ্রামপঞ্চায়েতের সদস্যদের একাংশের অভিযোগ, বিভিন্ন কাজের জন্য প্রধান, সদস্যদের কাছে কমিশন চাইছেন ব্লক তৃণমূল সভাপতি হজরত আলি। কিন্তু কাটমানি না দেওয়ায় প্রভাব খাটিয়ে তিনি কাজ করতে দিচ্ছেন না। ব্লকে নয়টি গ্রামপঞ্চায়েত রয়েছে। প্রায় সব পঞ্চায়েত থেকেই তিনি কাটমানি নিচ্ছেন। দৌলতনগর গ্রামপঞ্চায়েতের প্রধান বা সদস্যরা কাটমানি না দেওয়ায় তিনি নানাভাবে তাঁদের হেনস্থা করছেন। এমনকি প্রধানকে সরানোর চক্রান্ত করছেন বলেও অভিযোগ।


পঞ্চায়েত সদস্য তথা পঞ্চায়েত দলনেতা ষষ্ঠী দেবদাস বলেন, "আমাদের ব্লক সভাপতি বারবার বিভিন্ন কাজের জন্য আমাদের কাছে টাকা চান। আমাদের এবং আমাদের প্রধানকে হেনস্থা করেন। উন্নয়ন মূলক কাজে বাধা দেন। আমরা বিষয়টি দলকে জানিয়েছি। আজ আমরা এর প্রতিবাদে বিক্ষোভ প্রদর্শন করছি।"



প্রাক্তন অঞ্চল সভাপতি তথা বর্তমান অঞ্চলের চেয়ারম্যান আসলাম শেখ বলেন, "উনি আমার কাছে বিভিন্ন সময়ে টাকা চাইতেন। আমি পাত্তা দিতাম না। বলতেন টাকা না দিলে পদ থেকে সরিয়ে দেবেন। এখন অন্য দল থেকে আসা দুর্নীতিবাজ নেতৃত্বদের পদে বসিয়েছেন। এই ব্লক সভাপতিকে না সরালে দলের ক্ষতি হবে।"


হরিশ্চন্দ্রপুর-২ ব্লক সভাপতি মোহম্মদ হজরত আলি বলেন, "সমস্ত অভিযোগ ভিত্তিহীন। পঞ্চায়েতের কাজ সম্বন্ধে পঞ্চায়েতে প্রধান এবং সদস্যরা বলতে পারবে। এর সঙ্গে আমার কোনও সম্পর্ক নেই। সদস্যরা বেশিরভাগ কেন পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে চলে গেছে সেটা প্রধান বলুক। যাদের স্বার্থে আঘাত লেগেছে তারাই হয়তো অভিযোগ করছে। আমি কেমন কাজ করছি সেটা দল দেখছে।"




জেলা তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক বুলবুল খান বলেন, "ঘটনাটি শুনলাম। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।"


আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page