top of page

গ্রিন সিটি গড়তে সবুজ ধ্বংস করা হয়নিঃ নীহার

মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের গ্রিন সিটি প্রকল্পে অন্তর্ভূক্ত হয়েছে মালদা শহর৷ বিভিন্ন জায়গায় তার কাজও ইতিমধ্যে শুরু হয়ে গিয়েছে৷ কিন্তু সেই কাজ নিয়েই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে শহরে৷ অভিযোগ, এই প্রকল্পের কাজ করতে গিয়ে শহরের সবুজ ধ্বংস করা হচ্ছে৷ সবুজ ধ্বংস করে সবুজায়নের কাজ কী করে হয় তা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন শহরবাসী৷ সেই প্রশ্ন তুলেছেন প্রাক্তন মন্ত্রী, ইংরেজবাজার পুরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরিও৷ যদিও সমস্ত অভিযোগ তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিয়ে পুরসভার বর্তমান চেয়ারম্যান নীহাররঞ্জন ঘোষের দাবি, তাঁরাই শহরে সবুজায়নের কাজ শুরু করেছেন৷ এর আগে এই শহর সবুজ ছিল না৷



উল্লেখ্য, সম্প্রতি ইংরেজবাজার পুর এলাকা গ্রিন সিটি প্রকল্পের অন্তর্ভূক্ত হয়েছে৷ তার জন্য শহরের বিভিন্ন এলাকাকে পৃথক করে প্রকল্প নির্মিত হয়েছে৷ শহরের ফোয়ারা মোড় থেকে বিমল দাস মূর্তি পর্যন্ত কাজের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে ৪৬ লক্ষ টাকা৷ সেই কাজের মধ্যে রাস্তার ডিভাইডার নতুন করে নির্মাণ, ডিভাইডারের মধ্যে বিভিন্ন ম্যুরাল ও ত্রিফলা আলো এবং গাছ লাগানোর পরিকল্পনা রয়েছে৷ বিভিন্ন জায়গায় তার কাজ শুরুও হয়ে গিয়েছে৷ সেসব কাজ নিয়েই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে৷

অভিযোগ, মালদা শহরের নেতাজি মোড় থেকে এলআইসি মোড় পর্যন্ত ডিভাইডার অনেক আগেই নির্মাণ করা হয়েছিল৷ সেই ডিভাইডারের মধ্যে বসানো ছিল অনেক গাছ৷ বাস্তবিক অর্থেই রাস্তা ছিল সবুজ৷ কিন্তু বর্তমানে গ্রিন সিটি প্রকল্পের কাজ করতে গিয়ে ওই গাছগুলির বেশ কিছু অংশ নষ্ট করে দেওয়া হয়েছে৷ অনেক গাছ মারা গিয়েছে ৷ বেশ কিছু গাছ আবার মৃতপ্রায়৷ গ্রিন সিটি প্রকল্পের নামে গ্রিনকেই ধ্বংস করে দেওয়া হচ্ছে।

গোটা বিষয়টি নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রাক্তন পুরপ্রধান কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরিও৷ তিনি বলেন, কয়েকদিন আগেই পুরসভার বাজেট হয়েছে৷ বাজেটে কিন্তু সবুজায়নের কোনও কথা উল্লেখ নেই৷ সম্প্রতি পুরসভার কবরখানায় থাকা লক্ষ লক্ষ টাকার গাছ কেটে নেওয়া হল৷ তা নিয়েও কোনও কথা নেই৷ শহরের অনেক মোটা গাছও কেটে নেওয়া হয়েছে৷ শহরের মূল রাস্তার ডিভাইডারগুলির মধ্যে গাছ লাগানো ছিল৷ সেগুলিকে নষ্ট করে দেওয়া হচ্ছে৷ যা খুশি তাই চলছে৷ জনগন যে রয়েছে তা কারোর ধারণা নেই৷ এরা মুখ্যমন্ত্রীর ছবিকে সামনে রেখে যা খুশি করে চলেছে। মুখ্যমন্ত্রীকে বদনাম করছে৷

যদিও বর্তমান পুরপ্রধান নীহাররঞ্জন ঘোষ বলেন, যিনি এই অভিযোগ করছেন, তাঁর বোধহয় গ্রিন সিটি নিয়ে কোনও অভিজ্ঞতা নেই৷ আর গ্রিনটাও বোঝেন না তিনি৷ তাঁরা সবুজকে কোথাও ধ্বংস করেননি৷ যেখানে কাজ চলছে সেখানে কোনওদিনই সবুজ ছিল না৷ তাঁরা সবুজের জন্ম দিয়ে শহরকে নতুন রূপ দেওয়ার চেষ্টা করছেন৷


আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page