top of page

মালদার অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলছে প্লাস্টিক শিল্প

আম, লিচু, রেশমের পর মালদার অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলছে প্লাস্টিক শিল্প। রাস্তায় পড়ে থাকা প্লাস্টিক থেকে বছরে ব্যবসা হচ্ছে প্রায় আড়াইশো কোটি টাকার। গত দুই দশক ধরে মালদার সুজাপুর এলাকায় এই ব্যবসা মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। ব্যবসার সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছেন প্রায় ৩০ হাজার মানুষ।


জানা যাচ্ছে, রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত এমনকি উত্তর-পূর্ব ভারতের বিভিন্ন রাজ্য থেকে বর্জ্য প্লাস্টিক সংগ্রহ করছেন কাগজ কুড়ুনি ও পুরোনো জিনিসের ক্রেতারা। সেই বর্জ্য প্লাস্টিক ঠিকাদারদের মাধ্যমে এসে পৌঁছচ্ছে মালদায়। মালদার সুজাপুর এলাকায় শতাধিক প্লাস্টিক রিসাইক্লিং কারখানা রয়েছে। সেই কারখানাগুলোয় বর্জ্য প্লাস্টিক পরিষ্কার করে গলিয়ে নানা সামগ্রী তৈরিতে ব্যবহার হচ্ছে।


Plastic-industry-is-influencing-the-economy-of-Malda
সুজাপুর এলাকায় প্লাস্টিকের ব্যাবসা। সংবাদ চিত্র।

এই ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত শ্রমিকরা জানাচ্ছেন, এই প্লাস্টিক কারখানা হওয়ায় বহু মানুষ কর্মসংস্থানের সুযোগ পাচ্ছে। করোনার সময় কারখানা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সমস্যায় পড়তে হয়েছিল। তবে এবছর পুরোপুরিভাবে সমস্ত কারখানা চালু রয়েছে। এক কথায় এলাকার অর্থনীতিতে ব্যাপক প্রভাব ফেলেছে এই প্লাস্টিক শিল্প।


এক শ্রমিক আবদুল হক জানান,

করোনার সময় এলাকার সমস্ত প্লাস্টিক ফ্যাক্টরি বন্ধ হয়ে গিয়েছিল৷ খুব সংকটে পড়ে গিয়েছিলাম৷ ফের ফ্যাক্টরি খুলেছে৷ রমজান মাসে কাজের অভাব হয়নি এবার৷ আশা করছি, এবার ঈদ ভালোই কাটবে৷


এক ফ্যাক্টরির মালিক হাফিজুল আলম জানান,

করোনার ধাক্কা সামলে এখন ফের ব্যবসার হাল ফিরেছে৷ এলাকার হাজার হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হচ্ছে৷ আশা করছি জেলার অর্থনীতিতে এই প্লাস্টিক শিল্প ব্যাপক প্রভাব ফেলবে।

আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

Комментарии


বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page