top of page

প্রেমদিবসেই স্বামীর হাতে ছুরিকাহত স্ত্রী

পণের দাবিতে স্ত্রীর ওপর চলত অত্যাচার। অত্যাচার সহ্য না করতে পেরে বাবার বাড়ি চলে গিয়েছিলেন স্ত্রী। এরপরই বিবাহবিচ্ছেদের কথা বলেন স্বামী। বিচ্ছেদের কথায় পণে দেওয়া টাকা ফেরত চাইতেই ঘটল বিপত্তি। ভালোবাসার দিনেই স্ত্রীকে চাকু মারার অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে। আক্রান্ত স্ত্রী বর্তমানে চাঁচল সুপারস্পেশালিটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে চাঁচলে।


আক্রান্ত গৃহবধূর নাম রুজি খাতুন (২০)। বাড়ি হরিশ্চন্দ্রপুর থানার বড়ুই এলাকায়। পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, মাস ছয়েক আগে চাঁচল থানার সিঙ্গিয়া এলাকার যুবক আবদুল গণির সঙ্গে বিয়ে হয় রুজি খাতুনের। অভিযোগ, বিয়ের পর থেকে পণের দাবিতে স্ত্রীর ওপর অত্যাচার চালাতে থাকে স্বামী। অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে বাবার বাড়ি চলে যান রুজি খাতুন। সম্পত্তি বিক্রি করে দাবি মতো জামাইকে লক্ষ লক্ষ টাকা দেওয়ার পরেও আরও টাকার চাপ দিতে থাকে আবদুল।


এরপরই রুজি খাতুনের কাছ থেকে বিবাহবিচ্ছেদ চায় আবদুল। বিচ্ছেদের জেরে বিয়েতে দেওয়া পণের টাকা ফেরত চাইতে গেলে রুজিকে মারধর করা হয়। এমনকি চাকু গিয়ে স্ত্রীর মুখে আঘাত করা হয়েছে বলেও অভিযোগ। এই ঘটনায় আবদুলের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন রুজির মা ছবি খাতুন। অভিযোগের ভিত্তিতে আবদুলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।



ছবি খাতুন জানান,

বিয়ের পর থেকে পণের দাবিতে তাঁর মেয়ের ওপর অত্যাচার চালাতে থাকে আবদুল। লক্ষাধিক টাকা পণ দেওয়ার পরও টাকা চাওয়ার দাবি কমেনি। সে টাকা না দিতে পারায় বিবাহবিচ্ছেদ করে আবদুল। বিয়েতে দেওয়া টাকা চাইতে গেলে তাঁর মেয়েকে মারধর করা হয়। তিনি আবদুলের বিরুদ্ধে চাঁচল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

আমাদের মালদা এখন টেলিগ্রামেও। জেলার প্রতিদিনের নিউজ পড়ুন আমাদের অফিসিয়াল চ্যানেলে। সাবস্ক্রাইব করতে ক্লিক করুন

Comments


বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page