বিজ্ঞাপন

রেশন কার্ডের কুপন নিয়ে বিক্ষোভ, দুই পঞ্চায়েতে ঝুলল তালা

মালদা জেলার চাঁচল-১ নম্বর ব্লকে একই সঙ্গে দু’টি পঞ্চায়েত অফিসে ভাঙচুর ও তালা ঝোলানোর ঘটনায় তুমুল উত্তেজনা ছড়ায়। বুধবার বিকেলে মতিহারপুর ও কলিগ্রাম গ্রামপঞ্চায়েতে জনতা ক্ষুব্ধ হয়ে ওই ভাঙচুর করে বলে অভিযোগ। দুই পঞ্চায়েতেই গ্রামবাসীরা জরুরী কাজে এসে প্রধানকে না পেলে এই ঘটনা ঘটে বলে দাবি একাংশের।



চাঁচলের মতিহারপুর পঞ্চায়েত দফতরে পরিযায়ী শ্রমিকরা রেশনের কুপন নিতে এসে পরপর দু’দিন প্রধানকে না পেয়ে উত্তেজনা ছড়ায় বলে জানিয়েছে বাসিন্দাদের একাংশ। এমনকি দফতর থেকে সরকারি কর্মীদের বের করে দিয়ে প্রহরীর কাছ থেকে চাবি কেড়ে নিয়ে তালাও ঝুলিয়ে দেওয়া হয়।

তালিকায় নাম না থাকার অভিযোগে গত সপ্তাহে শ্রমিক বিক্ষোভের জেরে কুপন বিলি বন্ধ হয়ে যায় মতিহারপুরে। মঙ্গলবার ফের কুপন বিলি করা হবে বলে শ্রমিকদের জানানো হয়। কিন্তু এদিনও প্রধানকে না পেয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে ভাঙচুর শুরু করেন তারা। পঞ্চায়েতের প্রহরী মোজাম্মেল হক বলেন, প্রধানকে না পেয়ে ক্ষুব্ধ শ্রমিকরা মারতে উদ্যত হওয়ায় ভয়ে চাবি দিয়ে দিই। টানা চার ঘণ্টা পরে প্রশাসনের সহযোগিতায় পঞ্চায়েতে ঝোলানো তালা খোলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মতিহারপুরের প্রধান পপি দাস। মতিহারপুর গ্রামপঞ্চায়েতের প্রধান পপি দাস জানান, এদিন ব্লক অফিসে জরুরী মিটিং থাকায় পঞ্চায়েত দফতরে হাজির হতে পারিনি। ভাঙচুরের ঘটনাটি ব্লক অফিসে জানানো হয়েছে।

পৌঢ়া ফরিদা বেওয়ার অভিযোগ, ছেলে ভিনরাজ্য থেকে ফিরে এসেছে। সে এখনও রেশনের কুপন পায়নি। প্রতিদিন ফিরে যেতে হয় প্রধানের অনুপস্থিতির কারণে। কাজ হয় না। রেশন না পেলে কী খাব আমরা? গ্রামে ফিরে ছেলে কর্মহীন রয়েছে। আরও এক বাসিন্দা রাজেশ আলির অভিযোগ, প্রধানের গরহাজিরে আজ এই ঘটনা। প্রধান থাকলে এমনটা হতো না।


[ আরও খবরঃ আমের ক্ষয়ক্ষতি প্রধানমন্ত্রীকে জানিয়ে আর্থিক অনুদানের দাবি ]



পাশাপাশি কলিগ্রামে বাংলা আবাস যোজনার নথি জমা দিতে এসেছিলেন উপভোক্তারা। সেখানেও প্রধানকে না পেয়ে উত্তেজনা ছড়ায়। তারপরেই ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। কলিগ্রাম পঞ্চায়েত দফতরে ভাঙচুর চালিয়ে নথিপত্র ছিঁড়ে ফেলা হয় বলেও অভিযোগ। কয়েকজন উপভোক্তা জানিয়েছেন, সরকারি কর্মীরা নথি জমা নিতে নারাজ হয়। তারা বলেন, প্রধান এসেই জমা নেবেন সব। তারপরেই উত্তেজনা ছড়ায়। ঘটনার জেরে দু’জন উপভোক্তা সহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন এবং দু’জন চাঁচল সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভরতি রয়েছে বলে জানা গেছে।



কলিগ্রাম গ্রামপঞ্চায়েত প্রধান রেজাউল খানের দাবী নথি জমা না নেওয়ার অভিযোগ ভিত্তিহীন। চাঁচল ১ পঞ্চায়েত সমিতির কংগ্রেস সভাপতি ওবাইদুল্লা আহমেদ চৌধুরির নেতৃত্বে কিছু উপভোক্তা পঞ্চায়েত দফতরে ভাঙচুর চালান। পঞ্চায়েত দফতরের ইলেকট্রনিক যন্ত্রাংশ, ফুলের টব, চেয়ার টেবিল ভাঙচুর করেছে উপভোক্তারা। এবং দু’জন পঞ্চায়েত কর্মী নারায়ণ দাস ও লিটন শেখকে মারধর করা হয়েছে। উপপ্রধান অচিন দাসের আঙুল কেটে দিয়েছে বলে অভিযোগ প্রধানের।


এবিষয়ে চাঁচল ১ নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি ওবাইদুল্লাহ আহমেদ চৌধুরি বলেন, দফতরে কাজের চাপে গোটা দিন চেয়ার থেকে উঠতে পারিনি। সেটা ব্লকে সকলেই জানেন। আর আমি কী না কি কলিগ্রামে গিয়ে ভাঙচুরে নেতৃত্ব দিলাম। বিরোধী দলের হওয়ায় নিজেদের ভুল লুকোতে এসব হাস্যকর অভিযোগ তোলা হচ্ছে আমার বিরুদ্ধে।

চাঁচল-১ ব্লক সমষ্টি উন্নয়ন আধিকারিক সমীরণ ভট্টাচার্য এদিন মালদায় জরুরি মিটিংয়ে ছিলেন বলে জানিয়েছেন। দুটি ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ ও খোঁজ নিয়ে প্রধানদের সাথে আলোচনা করা হবে।

টপিকঃ #গ্রামপঞ্চায়েত

বিজ্ঞাপন

MGH
পপুলার
1

অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে মালদায় এল করোনা ভ্যাকসিন

1174

অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে মালদায় এল করোনা ভ্যাকসিন
2

বাসের জন্য নতুন স্টপেজ রথবাড়িতে

5858

বাসের জন্য নতুন স্টপেজ রথবাড়িতে
3

করোনার বিষ দাঁত ভেঙে শুরু হচ্ছে বইমেলা

722

করোনার বিষ দাঁত ভেঙে শুরু হচ্ছে বইমেলা
4

চাকরির টোপে প্রতারণার অভিযোগ জেলাপরিষদ সদস্যের বিরুদ্ধে

964

চাকরির টোপে প্রতারণার অভিযোগ জেলাপরিষদ সদস্যের বিরুদ্ধে
5

মালদায় জমে উঠেছে সোনাঝুড়ি হাট

4002

মালদায় জমে উঠেছে সোনাঝুড়ি হাট
Earnbounty_300_250_0208.jpg
At the Grocery Shop
টাটকা আপডেট

সাবস্ক্রিপশন

স্বত্ব © ২০২০ আমাদের মালদা

  • Facebook
  • Twitter
  • Instagram
  • YouTube
  • Pinterest
  • RSS