বিজ্ঞাপন

ভূতনি চরের বাঁধ রক্ষা করতে কাজ শুরু সেচ দপ্তরের


গতকাল থেকেই রুদ্রমূর্তি ধারণ করেছিল গঙ্গা। তার ভাঙনে ত্রাহিরব উঠেছিল ভূতনি চরের হীরানন্দপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের রাজকুমারটোলায়। অবশেষে ঘুম ভাঙল জেলা সেচ দপ্তরের। ভূতনি চরের রাজকুমারটোলায় বাঁধ রক্ষা করতে কাজ শুরু করল সেচ দপ্তর। এদিকে সেই কাজ শুরু করেছে স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েতও। সেই দাবি করেছেন পঞ্চায়েত প্রধান। তবে তার মধ্যেও পাড় ভাঙছে গঙ্গা। পুরোনো ও নতুন বাঁধের সংযোগস্থলের যে অংশ নিয়ে শঙ্কিত ছিলেন চরের বাসিন্দারা, সেই অংশটি এখন গঙ্গাগর্ভে। পরিস্থিতি কোন দিকে যায়, এখন সেটাই দেখার।


পাড় ভাঙতে ভাঙতে গঙ্গা ছুঁয়ে ফেলেছিল বাঁধ। সে বাঁধ ভাঙলে অন্তত ৬০ হাজার মানুষ বানভাসি হবেন। জলমগ্ন হয়ে পড়বে ১০-১২টি গ্রাম।

উল্লেখ্য, পাড় ভাঙতে ভাঙতে গঙ্গা ছুঁয়ে ফেলেছিল বাঁধ। সে বাঁধ ভাঙলে অন্তত ৬০ হাজার মানুষ বানভাসি হবেন। জলমগ্ন হয়ে পড়বে ১০-১২টি গ্রাম। বিপন্ন সেই পরিস্থিতিতে জেলা সেচ দপ্তরের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছিলেন হীরানন্দপুর গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান সারথি মাহাতো। তাঁর অভিযোগ ছিল, সেচ দপ্তরের লোকজন প্রশাসনকে ভুল তথ্য দিচ্ছে। ফলে পরিস্থিতির ভয়াবহতা বুঝতে পারছে না প্রশাসন। যদিও জেলাশাসক কৌশিক ভট্টাচার্য ও মানিকচকের বিডিও উৎপল মুখার্জি জানিয়েছিলেন, তাঁরা পরিস্থিতির উপর তীক্ষ্ণ নজর রাখছেন। সময়মতো প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। জেলাশাসক আরও জানিয়েছিলেন, ওই বাঁধ সংস্কারের জন্য সরকারের কাছে অর্থ চেয়ে পাঠানো হয়েছে। টেন্ডার প্রক্রিয়াও শেষ হয়েছে। এবার শুধু কাজ শুরুর অপেক্ষা।

তবে গঙ্গার গতিপ্রকৃতি দেখে চিন্তায় ছিলেন প্রশাসনিক কর্তারা। তাই সরকারি নিয়মকানুনকে দূরে সরিয়ে রেখে এদিন ভোর থেকেই বাঁধ মেরামতির কাজে নেমে পড়ে সেচ দপ্তর। বালির বস্তা ফেলে বাঁধ বাঁচানোর চেষ্টা করছে তারা। যদিও পঞ্চায়েত প্রধান সারথি মাহাতো এদিন জানিয়েছেন, এভাবে বাঁধ বাঁচানো যাবে না। বালির বস্তা গঙ্গার স্রোত আটকাতে পারবে না। বাঁধ বাঁচাতে গেলে বাঁধের গোড়ায় নদীতে বোল্ডার ক্রেট ফেলতে হবে। তা না হলে সরকারি অর্থ জলেই যাবে। তবে এই মুহূর্তে যে বোল্ডার ফেলা সম্ভব নয় তা এদিন সাফ জানিয়ে দিয়েছেন জেলা সেচ দপ্তরের এগজিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার প্রণব সামন্ত। তিনি বলেন, বোল্ডার ফেলা একইসঙ্গে সময় ও খরচ সাপেক্ষ। এই মুহূর্তে নদীতে বোল্ডার ফেলা সম্ভব নয়। নদীর স্রোত প্রতিহত করার জন্য বালির বস্তা যথেষ্ট। আপাতত সেই কাজটিই করছেন তাঁরা। এদিন রাতেও দপ্তরের লোকজন নদীপাড়ে থাকবেন। প্রয়োজন পড়লে রাতেও কাজ করা হবে।

এদিকে এদিনও রাজকুমারটোলায় অল্পবিস্তর ভাঙন হয়েছে। তবে গতকালের তুলনায় তার তীব্রতা কিছুটা হলেও কমেছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে।


বিজ্ঞাপন

Malda Guinea House.jpg

পপুলার

1

মানিকচকে গঙ্গায় ডুবল ভেসেল, সার্চলাইট জ্বালিয়ে খোঁজ

Popular News

614

মানিকচকে গঙ্গায় ডুবল ভেসেল, সার্চলাইট জ্বালিয়ে খোঁজ
2

সুজাপুরে বিস্ফোরণস্থলে এলেন ফিরহাদ হাকিম, আসছে ফরেনসিক দল

Popular News

700

সুজাপুরে বিস্ফোরণস্থলে এলেন ফিরহাদ হাকিম, আসছে ফরেনসিক দল
3

তীব্র বিস্ফোরণ সুজাপুরের প্লাস্টিক কারখানায়

Popular News

1297

তীব্র বিস্ফোরণ সুজাপুরের প্লাস্টিক কারখানায়
4

দোকানে হানা, মাদক বিক্রেতাদের কঠোর বার্তা পুলিশের

Popular News

544

দোকানে হানা, মাদক বিক্রেতাদের কঠোর বার্তা পুলিশের
5

সংক্রমণ রুখতে এবার বন্ধ গোবরজনায় কালীপুজোর মেলা

Popular News

755

সংক্রমণ রুখতে এবার বন্ধ গোবরজনায় কালীপুজোর মেলা
Earnbounty_300_250_0208.jpg
At the Grocery Shop
টাটকা আপডেট
কমেন্ট করুন
 

aamadermalda.in

সাবস্ক্রিপশন

স্বত্ব © ২০২০ আমাদের মালদা

  • Facebook
  • Twitter
  • Instagram
  • YouTube
  • Pinterest
  • RSS