top of page

রতুয়ায় বন্যা পরিদর্শনে গেল প্রশাসন, কর্তাদের ঘিরে গ্রামবাসীদের বিক্ষোভ

রতুয়ায় বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শনে গেলেন জেলার প্রশাসনিক কর্তারা। প্রশাসনিক কর্তাদের ঘিরেই চলতে থাকে গ্রামবাসীদের বিক্ষোভ। প্রশাসনের পক্ষ থেকে দ্রুত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার আশ্বাস দেওয়া হলে বিক্ষোভ তুলে নেন গ্রামবাসীরা।



গত কয়েকদিন ধরে ক্রমাগত রতুয়ার (#Ratua) সূর্যাপুরের বাঁধকে গ্রাস করেছে ফুলহর। প্রায় ৪০০টি বাড়ি জলের তলায়। প্রাণ বাঁচাতে এদিক-ওদিক ছুটে বেড়াচ্ছেন গ্রামবাসীরা। আতঙ্কে আগেই গ্রাম ছেড়ে পালিয়েছেনও অনেকে। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, প্রশাসন ও সেচদপ্তরের চূড়ান্ত অবহেলার জন্যেই বাঁধ ভেঙে প্লাবিত হচ্ছে বিস্তীর্ণ অঞ্চল। মালদার রতুয়া ১ ব্লকের কাহালার সুর্যাপুর বাঁধ গত কয়েকদিন আগেই ফুলহারের ভাঙনে তলিয়ে যায় নদীগর্ভে। ২০০ মিটারের বেশি জল প্লাবিত হয়েছে এলাকায়। গ্রীষ্মের সময় বাঁধ মেরামতির কোনও কাজ করা হয়নি। বারবার সেচ দপ্তর ও প্রশাসনকে জানানো হলেও প্রশাসনিক কর্তারা কর্ণপাত করেননি। বর্ষা আসতেই সেচ দপ্তরের কর্মীরা বাঁধ মেরামতির কাজ শুরু করেছেন। ফলে কাজের কাজ কিছুই হইয়নি, অথচ কোটি কোটি টাকা নষ্ট হল।


রতুয়ার বন্যা (#Flood) কবলিত এলাকা পরিদর্শনে যান জেলাশাসক কৌশিক ভট্টাচার্য, পুলিশ সুপার অলোক রাজোরিয়া ও জেলা পরিষদের সভাধিপতি গৌরচন্দ্র মণ্ডল। প্লাবিত এলাকা পরিদর্শনের গেলে ক্ষুব্ধ গ্রামবাসীরা প্রশাসনিক কর্তাদের ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে থাকে। পরে প্রশাসনের আশ্বাসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

বিজ্ঞাপন

Malda-Guinea-House.jpg

আরও পড়ুন

bottom of page