বিজ্ঞাপন

চোর অপবাদ দিয়ে খুঁটিতে বেঁধে ইলেকট্রিক শক


শুধু গ্রামবাসীদের বিরুদ্ধেই নয়, চুরির অপবাদে এক কিশোরের উপর অমানুষিক অত্যাচার চালানোয় পুলিশের বিরুদ্ধেও চরম অমানবিকতার অভিযোগ তুলেছেন এক কিশোরের মা। আপাতত ওই কিশোর বর্তমানে মালদা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ছেলে একটু সুস্থ হলেই গোটা ঘটনায় পুলিশ ও অভিযুক্ত গ্রামবাসীদের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ দায়ের করবেন বলে জানিয়েছেন মা। ঘটনাটি ঘটেছে মোথাবাড়ি থানার পঞ্চানন্দপুর গ্রামে।

পঞ্চানন্দপুরের বাসিন্দা তারা। চিকিৎসাধীন কিশোরের নাম রবিউল শেখ। বয়স ১৪। বাবার অবর্তমানে মা আমিনা বেওয়াই কোনওরকমে সংসার প্রতিপালন করেন। আমিনা জানান, গতকাল গ্রামেরই বাসিন্দা মতিব শেখের বাড়ি থেকে ১ ভরি সোনার গয়না সহ ৪০ হাজার টাকা চুরি যায়। সেই ঘটনায় মতিব ও তার বাড়ির লোকজন তাঁর ছেলেকে সন্দেহ করে। বিকেলে তারা রবিউলকে ডেকে নিয়ে যায়। সেই সময় তিনি কাজে বাইরে ছিলেন।


কিন্তু পুলিশের অমানবিক আচরণে ক্ষুব্ধ ওই যুবকের মা। আমিনা বেওয়া জানান, পুলিশ রবিউলকে উদ্ধার করলেও তাকে হাসপাতালে না নিয়ে গিয়ে থানায় নিয়ে যায়। থানাতেও তাঁর ছেলেকে বেধড়ক মার দেয় পুলিশ।

আমিনার অভিযোগ, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করার পর রাত হলে শুরু হয় তাঁর ছেলের উপর অত্যাচার। চুরির কথা স্বীকার করানোর জন্য মতিবরা তাঁর ছেলেকে গ্রামের মধ্যে থাকা একটি বৈদ্যুতিক খুঁটিতে বেঁধে বেধড়ক মারধর শুরু করে। শুধু মারধরই নয়, রবিউলকে ইলেকট্রিক শকও দেয় তারা। সেই অত্যাচারে মতিব ছাড়াও শামিল ছিল হুমায়ুন শেখ, রিন্টু শেখ, রেজাউল শেখ সহ আরও কয়েকজন। তিনি ছেলেকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য বার বার তাঁদের পা ধরেন। কিন্তু তাঁর আর্তিতে সাড়া দেয়নি কেউ। শেষ পর্যন্ত খবর পেয়ে রাত সাড়ে ৯টা নাগাদ মোথাবাড়ি থানার পুলিশ গ্রামে যায়। তাঁর ছেলেকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যান পুলিশকর্মীরা।

কিন্তু পুলিশের অমানবিক আচরণে ক্ষুব্ধ ওই যুবকের মা। আমিনা বেওয়া জানান, পুলিশ রবিউলকে উদ্ধার করলেও তাকে হাসপাতালে না নিয়ে গিয়ে থানায় নিয়ে যায়। থানাতেও তাঁর ছেলেকে বেধড়ক মার দেয় পুলিশ। রাতে তাঁকে বা তাঁর পরিবারের কাউকে থানায় থাকতে দেওয়া হয়নি। সকালে পুলিশই তাঁদের খবর দেয়, তাঁর ছেলে অসুস্থ হয়ে পড়েছে। খবর পেয়ে তাঁরা দ্রুত থানায় ছুটে যান। দেখেন, অত্যাচারের ফলে রবিউল দাঁড়াতে বা কথা বলতে পারছে না। তিনি ছেলেকে মালদা মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি করেন। আপাতত তিনি ছেলেকে সুস্থ করে তোলার অপেক্ষায় রয়েছেন। ছেলে একটু সুস্থ হলেই তিনি মতিব সহ তার পরিবারের লোকজন, এমনকি মোথাবাড়ি থানার পুলিশের বিরুদ্ধেও পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ দায়ের করবেন।

মোথাবাড়ি থানার পুলিশ জানিয়েছে, গতকাল রাতে পুলিশ রবিউলকে ক্ষিপ্ত গ্রামবাসীদের হাত থেকে উদ্ধার করে। তার শারীরিক অবস্থা হাসপাতালে ভর্তির মতো ছিল না। তার নিরাপত্তার কথা ভেবেই রাতে তাকে থানায় রাখা হয়। এদিন সকালে তাকে পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। তার উপর পুলিশি অত্যাচারের অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন।

#Crime #DigitalDesk

বিজ্ঞাপন

Netaji.jpg
পপুলার
1

শহরের জঞ্জাল পরিষ্কার হবে কীভাবে? প্রশ্ন বঙ্গরত্নের

570

শহরের জঞ্জাল পরিষ্কার হবে কীভাবে? প্রশ্ন বঙ্গরত্নের
2

জেলায় দ্বিতীয় বইমেলার প্রস্তুতি শুরু

3027

জেলায় দ্বিতীয় বইমেলার প্রস্তুতি শুরু
3

স্থান বদলে শুরু হল মালদা বইমেলা, চলবে ২৪ জানুয়ারি পর্যন্ত

3295

স্থান বদলে শুরু হল মালদা বইমেলা, চলবে ২৪ জানুয়ারি পর্যন্ত
4

মালদায় শুরু করোনা টিকাকরণ, প্রথম টিকা পেলেন কৃষ্ণা

634

মালদায় শুরু করোনা টিকাকরণ, প্রথম টিকা পেলেন কৃষ্ণা
5

অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে মালদায় এল করোনা ভ্যাকসিন

1194

অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে মালদায় এল করোনা ভ্যাকসিন
Earnbounty_300_250_0208.jpg
At the Grocery Shop
টাটকা আপডেট

সাবস্ক্রিপশন

স্বত্ব © ২০২০ আমাদের মালদা

  • Facebook
  • Twitter
  • Instagram
  • YouTube
  • Pinterest
  • RSS