বিজ্ঞাপন

স্ত্রীর পেটে লাথি, গর্ভস্থ সন্তানকে খুন করল স্বামী


অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীর পেটে লাথি মেরে গর্ভস্থ সন্তানকে খুন করল স্বামী৷ অমানবিক এই ঘটনাটি ঘটেছে হবিবপুর ব্লকের বৈদ্যপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের মাহিভিটা গ্রামে৷ এই ঘটনায় পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছেন আক্রান্ত বধূর জ্যেঠু৷ তবে ঘটনার পর থেকেই এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে অভিযুক্ত স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন৷ তাদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে হবিবপুর থানার পুলিশ৷

হবিবপুরের ইতিহাসপ্রসিদ্ধ গ্রাম জগজীবনপুর৷ মাহিভিটা গ্রামটি জগজীবনপুর সংলগ্ন৷ সেখানেই বাবার বাড়ি নিরুপমা বিশ্বাস হালদারের৷ বয়স মাত্র ১৯৷ একই গ্রামের যুবক সমর হালদারের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল নিরুপমার৷ সমর সাটারিং মিস্ত্রির কাজ করে৷ তার বাবা মারা গিয়েছেন কয়েক বছর আগেই৷ বাড়িতে রয়েছেন মা দিপালী হালদার ও ২১ বছরের ভাই সরজিৎ৷ ভালোবেসেই এক বছর আগে নিরুপমাকে বিয়ে করে সমর৷ দুই বাড়ির লোকজনও এই বিয়ে মেনে নিয়েছিলেন৷ নিরুপমার বাবা অমিয় বিশ্বাস পেশায় ভিন রাজ্যের শ্রমিক৷ এখন তিনি বেঙ্গালুরুতে কর্মরত৷


বিয়ের পর গর্ভবতী হন নিরুপমা৷ ৬ মাস আগেই গর্ভধারণ করেন তিনি৷ কিন্তু সেই ঘটনাই তাঁদের স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্কে কাল হয়ে দাঁড়ায়৷ নিরুপমার মা সরস্বতী বিশ্বাসের অভিযোগ, তাঁর মেয়েকে বিয়ের পর সমরের সঙ্গে পাশের আদিবাসীপাড়ার একটি মেয়ের সম্পর্ক গড়ে ওঠে৷ এনিয়ে তাঁর মেয়ে-জামাইয়ের মধ্যে ঝামেলা চলছিলই৷ এরই মধ্যে গর্ভধারণ করে নিরুপমা৷ সেকথা শুনে সমর তাঁর মেয়েকে গর্ভপাত করানোর জন্য চাপ দিতে তাকে৷ তার উদ্দেশ্য ছিল, ওই আদিবাসী মেয়েটিকে বিয়ে করা৷ কিন্তু নিরপমার সন্তান হলে সেই বিয়েতে সমস্যা হতে পারে ভেবেই সে তাঁর মেয়ের গর্ভপাত করাতে চায়৷ কিন্তু নিরুপমা গর্ভপাত করাতে অস্বীকার করে৷ প্রথম সন্তানকে সে কিছুতেই নষ্ট করতে চায়নি৷ এরপরেই শুরু হয় তাঁর মেয়ের উপর শারীরিক অত্যাচার৷ মারধরের পাশাপাশি তার সারা শরীরে বিড়ি-সিগারেটের ছ্যাঁকাও দিত সমর৷ অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে নিরুপমা বেশ কয়েকবার তাঁদের বাড়িতে চলে আসে৷ গত ১ অগাস্ট সে সমর, শাশুড়ি দিপালী ও দেওর সরজিতের বিরুদ্ধে হবিবপুর থানায় অভিযোগও দায়ের করে৷ যদিও গ্রামবাসীরা সালিশির মাধ্যমে সেই সমস্যা মিটিয়ে দেন৷ সমরও ভবিষ্যতে কখনও নিরুপমার উপর অত্যাচার করবে না বলে শপথ করে৷

নিরুপমার জ্যেঠু উকিল বিশ্বাস জানান, সালিশি সভায় সমর স্ত্রীর উপর অত্যাচার করবে না বলে কতা দিলেও গত রবিবার ফের সে নিরুপমাকে বেধড়ক মারধর করে৷ রাস্তায় ফেলে নিরুপমার পেটে লাথি মারতে থাকে সে৷ সেই দৃশ্য দেখে গ্রামবাসীরাই নিরুপমাকে উদ্ধার করেন৷ সোমবার নিরুপমাকে স্থানীয় বুলবুলচণ্ডী গ্রামীণ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়৷ পরে হাসপাতাল থেকে শ্বশুরবাড়িতে ফিরেও যায় তাঁর ভাইঝি৷ কিন্তু গতকাল রাতে ফের তার উপর অত্যাচার শুরু করে সমর৷ লাথি ও মারের চোটে অজ্ঞান হয়ে যায় তাঁর ভাইঝি৷ রাত ১১টা নাগাদ তাঁরা নিরুপমাকে মালদা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে আসেন৷ পরীক্ষা করেই চিকিৎসকরা জানিয়ে দেন, নিরুপমার গর্ভস্থ সন্তানের মৃত্যু হয়েছে৷ মাঝরাতে অস্ত্রোপচার করা হয় তার৷ তার পেট থেকে তিনটি খণ্ডে গর্ভস্থ ভ্রুণ বের করেন চিকিৎসকরা৷ এই ঘটনায় তিনি হবিবপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন৷ তাঁরা সমরের কঠোর শাস্তি চান ৷

হবিবপুর থানার পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনার পর থেকেই পলাতক সমর ও তার বাড়ির লোকজন৷ অভিযুক্তদের খোঁজে জোর তল্লাশি চালানো হচ্ছে ৷ যেভাবেই হোক, তাদের গ্রেফতার করা হবে৷

#Crime #DigitalDesk

বিজ্ঞাপন

Republic-Day.jpg
পপুলার
1

শহরের জঞ্জাল পরিষ্কার হবে কীভাবে? প্রশ্ন বঙ্গরত্নের

582

শহরের জঞ্জাল পরিষ্কার হবে কীভাবে? প্রশ্ন বঙ্গরত্নের
2

জেলায় দ্বিতীয় বইমেলার প্রস্তুতি শুরু

3031

জেলায় দ্বিতীয় বইমেলার প্রস্তুতি শুরু
3

স্থান বদলে শুরু হল মালদা বইমেলা, চলবে ২৪ জানুয়ারি পর্যন্ত

3295

স্থান বদলে শুরু হল মালদা বইমেলা, চলবে ২৪ জানুয়ারি পর্যন্ত
4

মালদায় শুরু করোনা টিকাকরণ, প্রথম টিকা পেলেন কৃষ্ণা

634

মালদায় শুরু করোনা টিকাকরণ, প্রথম টিকা পেলেন কৃষ্ণা
5

অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে মালদায় এল করোনা ভ্যাকসিন

1195

অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে মালদায় এল করোনা ভ্যাকসিন
Earnbounty_300_250_0208.jpg
At the Grocery Shop
টাটকা আপডেট

সাবস্ক্রিপশন

স্বত্ব © ২০২০ আমাদের মালদা

  • Facebook
  • Twitter
  • Instagram
  • YouTube
  • Pinterest
  • RSS