বিজ্ঞাপন

বুলবুলির গিরিজাসুন্দরী স্কুলে জনতার তাণ্ডব

এক ছাত্রকে বেধড়ক মারধর করার অভিযোগে উত্তাল হয়ে উঠল হবিবপুর থানার বুলবুলচণ্ডি গিরিজাসুন্দরী বিদ্যামন্দির৷ স্থানীয় জনতা এদিন শিক্ষকদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ তুলে স্কুলে রীতিমতো তাণ্ডব চালায়৷ স্কুলের চারজন শিক্ষককে মারধরও করা হয় বলে স্থানীয়সূত্রে জানা যায়৷ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে হবিবপুর থানার পুলিশ ও বিডিও৷ তাঁদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে৷ প্রহৃত ছাত্র বর্তমানে মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন৷ যদিও এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত পুলিশের কাছে কোনও অভিযোগ দায়ের হয়নি৷



ছেলে ও মেয়ে একসঙ্গেই পড়ে গিরিজাসুন্দরী বিদ্যামন্দিরে৷ ঘটনার সূত্রপাত হয় দুপুর একটা নাগাদ৷ সেই সময় স্কুলের একাদশ শ্রেণিতে ক্লাস নিচ্ছিলেন তন্ময় বিশ্বাস নামে এক শিক্ষক৷ তাঁর ক্লাসের এক ছাত্র কাগজের গোলা ও পেনের ক্যাপ ছুঁড়ে এক ছাত্রীকে উত্যক্ত করছিল৷ সেই ছাত্রীটি তন্ময়বাবুর কাছে তা নিয়ে অভিযোগ জানায়৷ অভিযোগ পেয়ে তন্ময়বাবু সৌরভ সরকার নামে ওই ছাত্রকে মারধর করেন৷ তাকে টিসি দিয়ে দেওয়া হবে বলে ভয় দেখান৷ তখনই সৌরভ ওরফে বান্টি মারধরের জন্য কিংবা ভয়ে অজ্ঞান হয়ে যায়৷ বাবা গৌতম সরকার খবর পেয়ে স্কুলে ছুটে আসেন৷ বান্টিকে নিয়ে যাওয়া হয় স্থানীয় বুলবুলচণ্ডি পিএন রায় গ্রামীণ হাসপাতালে৷ পরে তাকে মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়৷ বর্তমানে সে সেখানেই চিকিৎসাধীন৷

এদিকে এই খবর জানাজানি হতেই উত্তেজনা ছড়াতে শুরু করে এলাকায়৷ কিছুক্ষণ পরেই কয়েকশো উত্তেজিত মানুষ স্কুলে কার্যত তাণ্ডব চালায়৷ স্কুলের অফিস ঘরের কম্পিউটার, আলমারি, ফ্যান, লাইট ভেঙে তছনছ করে দেয়৷ জানা গিয়েছে, উত্তেজিত জনতা তন্ময়বাবু সহ চার শিক্ষককে বেদম মারধর করে৷ খবর পেয়ে স্কুলে ছুটে আসে হবিবপুর থানার পুলিশ৷ ছুটে আসেন হবিবপুরের বিডিও ফুর্বা দোরজি ভুটিয়াও৷ তাঁদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে৷

গৌতমবাবুর অভিযোগ, ক্লাসে পেনের ক্যাপ ছোঁড়ার অভিযোগে তন্ময়বাবু তাঁর ছেলেকে প্রথমে ক্লাসরুমে বেধড়ক মারধর করেন৷ তারপর ছেলেকে টিচার্স রুমে টানতে টানতে নিয়ে যান তিনি৷ সেখানে সুদীপ্তবাবু, শান্তিবাবু সহ আরও কয়েকজন শিক্ষক তাঁর ছেলেকে বেধড়ক মারধর করেন৷ তাঁর ছেলে অজ্ঞান হয়ে গেলেও স্কুলের তরফে তাকে হাসপাতাল নিয়ে যাওয়া হয়নি৷ তিনি এসে ছেলেকে হাসপাতাল নিয়ে যান৷ স্কুল কর্তৃপক্ষের এহেন আচরণে তিনি ব্যথিত, ক্ষুব্ধ৷

স্কুলের প্রধান শিক্ষক জগদীশ সরকার অবশ্য শিক্ষকদের মার খাওয়ার ঘটনা স্বীকার করেননি৷ তিনি বলেন, বান্টি নামে এক ছাত্রকে নিয়ে এদিন স্কুলে কিছু গোলমাল হয়েছিল৷ তা মিটে গিয়েছে৷ ক্লাসে বান্টি এক ছাত্রীকে পেনের ক্যাপ ছুঁড়ে উত্যক্ত করছিল৷ তাই শিক্ষক তাকে ক্লাস থেকে বের করে দেন৷ তাকে টিসি দিয়ে দেওয়া হবে বলে ভয় দেখান৷ কিন্তু তাকে কেউ মারধর করেনি৷

এদিকে মালদা মেডিক্যাল কলেজে চিকিৎসাধীন বান্টিও ক্লাসে পেনের ক্যাপ ছোঁড়ার কথা স্বীকার করেছে৷ সে জানায়, এক ছাত্রকে মারতে গিয়ে সেই ক্যাপ এক ছাত্রীর মাথায় লেগে গিয়েছিল৷ ঘটনা নিয়ে হবিবপুর থানার পুলিশ জানিয়েছে, খবর পেয়ে স্কুলে গিয়ে পুলিশকর্মীরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছেন৷ এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত কোনও অভিযোগ জমা পড়েনি৷

35 views

বিজ্ঞাপন

MGH.jpg
পপুলার
1

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে মালদায় মৃত ১৬

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে মালদায় মৃত ১৬
2

চোরাই মোবাইল পাচারচক্রের হদিশ, ধৃত তিন

চোরাই মোবাইল পাচারচক্রের হদিশ, ধৃত তিন
3

সরানো হল মালদা সদর মহকুমাশাসককে

সরানো হল মালদা সদর মহকুমাশাসককে
4

কেন ইংলিশবাজার? নাম পরিবর্তনের ইচ্ছে বিজেপি প্রার্থীর

কেন ইংলিশবাজার? নাম পরিবর্তনের ইচ্ছে বিজেপি প্রার্থীর
5

ইংরেজবাজারে উদ্ধার মানুষের মাথার খুলি

ইংরেজবাজারে উদ্ধার মানুষের মাথার খুলি
Earnbounty_300_250_0208.jpg