১৬ থেকে ২২- বইয়ের স্রোতে মালদা

১৬ থেকে ২২- বইয়ের স্রোতে মালদা

প্রায় আড়াই দশকের সম্পর্ক শেষ৷ এক লহমায়৷ আর কলেজ মাঠ নয়, এবার শীতের সবচেয়ে বড়ো কার্নিভ্যাল মহানন্দার পাড়ে৷ সেখানেই আগামী ১৬ থেকে ২২ জানুয়ারি পর্যন্ত বসছে ৩০তম মালদা জেলা বইমেলার আসর৷ সেকথা প্রকাশ পেতেই প্রতিদিন, প্রতিনিয়ত জেলাবাসীর দীর্ঘশ্বাস ভেসে যাচ্ছে নদীর স্রোতে৷ কারণ, মালদা কলেজ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বইমেলা কর্তৃপক্ষের অলিখিত বিরোধ৷ খানিকটা সেই বিরোধের জেরেই খানিকটা পিছিয়ে আসতে বাধ্য হয়েছে বইমেলা কর্তৃপক্ষ৷


প্রথমে ঘোষণা করা হয়েছিল, ২২ থেকে ২৮ জানুয়ারি চলবে মালদা জেলা বইমেলা৷ কিন্তু আজ সন্ধেয় সেই দিনক্ষণ পরিবর্তিত হয়েছে৷

২২ থেকে ২৮ জানুয়ারি মালদা কলেজের বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান রয়েছে৷ সেই সব অনুষ্ঠানের কথা ভেবেই বইমেলার দিন পরিবর্তন করা হয়েছে৷ নতুন সূচি অনুযায়ী এবার মেলা শুরু হচ্ছে ১৬ জানুয়ারি৷


হাতে গোনা কয়েকটি স্টল নিয়ে ২৯ বছর আগে বৃন্দাবনি ময়দানে পথ চলা শুরু করেছিল মালদা জেলা বইমেলা৷

মেলার কলেবর বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে শুরু করে বুক স্টলের সংখ্যা৷ সেই সময় বইমেলাকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় মালদা কলেজ মাঠে৷ এরপর প্রায় আড়াই দশক ধরে সেই মাঠে হয়ে আসছিল জেলা বইমেলা৷ কিন্তু এই ইশ্যুতে গতবার থেকেই মালদা কলেজ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বইমেলা কমিটির বিরোধ শুরু হয়৷ প্রকাশ্যে কেউ মুখ না খুললেও জানা গিয়েছে, বইমেলা শেষে কলেজ মাঠের দশা বেহাল হয়ে পড়ে প্রতিবার৷ সেই মাঠ ঠিক করার জন্য কোনও অর্থ কলেজ কর্তৃপক্ষকে দিত না মেলা কর্তৃপক্ষ৷ সেই কারণে গতবারই কলেজ মাঠে বইমেলার আয়োজন করার ক্ষেত্রে প্রথমে বাধা দিয়েছিল কলেজ কর্তৃপক্ষ৷ তবে প্রশাসনিক সেই হস্তক্ষেপে সমস্যার সমাধান হয়৷ গতবছর সেখানেই অনুষ্ঠিত হয় ২৯তম জেলা বইমেলা৷ এবছর মালদা কলেজের প্ল্যাটিনাম জুবিলি৷ সেই অনুষ্ঠানের আয়োজনে নিজেদের মাঠকে সাজিয়ে তুলেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ৷ মাঠের চারপাশে লাগানো হয়েছে ফ্লাড লাইট৷ নৈশকালীন খেলাধুলোর জন্যই এই ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে কলেজ কর্তৃপক্ষ৷ আগামী ১০ থেকে ৩০ জানুয়ারি নিজেদের মাঠে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ৷ স্বাভাবিকভাবেই এবার বইমেলা কমিটিকে নিজেদের মাঠ দিতে নারাজ তারা৷

এই অবস্থায় ইংরেজবাজার পুরসভার ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের সদরঘাট এলাকায় মহানন্দা নদীর ধারে ৩০তম মালদা জেলা বইমেলার আয়োজন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে মেলা কমিটি৷ কমিটির যুগ্ম সম্পাদক, ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর অম্লান ভাদুরি এপ্রসঙ্গে বলেন, মালদা কলেজ মাঠ শহরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত৷ সেখানে এই মেলার একটা ঐতিহ্য ছিল৷ বইমেলার জন্য কলেজ মাঠ পাওয়ার জন্য তাঁরা কলেজ কর্তৃপক্ষ এবং কলেজের প্রশাসক জেলাশাসকের কাছে আবেদন জানিয়েছিলেন৷ কিন্তু প্ল্যাটিনাম জুবিলির বিভিন্ন অনুষ্ঠান থাকায় কলেজ কর্তৃপক্ষ মাঠটি দিতে অস্বীকার করেছে৷ তাঁরা বৃন্দাবনি ময়দানেও মেলা করার কথা ভেবেছিলাম৷ কিন্তু সেখানে ৮০টির বেশি স্টল করা সম্ভব নয়৷ এরপর তাঁরা রামকৃষ্ণ মিশন বিবেকানন্দ বিদ্যামন্দিরের পাশের মাঠটিতে মেলা করার কথা ভাবেন৷ কিন্তু সেখানে জানুয়ারিতে ওই মাঠে সভা করার কথা রয়েছে খোদ মুখ্যমন্ত্রীর৷ স্বাভাবিকভাবেই সেই মাঠে মেলা করা সম্ভব হবে না৷ এরপরেই তাঁরা ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে মহানন্দা নদীর ধারে শিবপুজোর মেলার মাঠটি পরিদর্শন করি৷ মাঠটি জেলাশাসককেও দেখানো হয়৷ মাঠটির পরিকাঠামো ভালো৷ পার্কিং-এর পর্যাপ্ত জায়গা রয়েছে৷ প্রতিবার বইমেলায় ২২৫টি স্টল হয়৷ তার মধ্যে ১৫০ থেকে ১৬০টি বুকস্টল, বাকিগুলি নন বুকস্টল৷ এই মাঠে তার থেকেও বেশি স্টল সেখানে করা যাবে৷ একটিই অসুবিধে, সম্পূর্ণ একটি নতুন জায়গায় এবার জেলা বইমেলা অনুষ্ঠিত হবে৷ তার জন্য প্রচারে জোর দিতে হবে৷ অম্লানবাবু আরও বলেন, মহানন্দার তীরে হলেও বইমেলায় দুর্ঘটনার কোনও আশঙ্কা নেই৷ কারণ, প্রতিবারের মতো এবারও তাঁরা মেলায় পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করবেন৷ মেলা প্রাঙ্গণকে টিনের বেড়া দিয়ে ঘিরে ফেলা হবে৷

তবে মহানন্দাপাড়ের বইমেলা মালদাবাসী কতটা আপন করে নেবেন তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে৷ তার আঁচ পাওয়া গিয়েছে জেন ওয়াইয়ের গলায়৷ মালদা কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী অর্পিতা দাস, লাবণী চৌধুরি সহ আরও কয়েকজন সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, জেলা বইমেলা আর কলেজ মাঠ সমার্থক৷ কলেজ মাঠে বইমেলায় আসা মালদাবাসীর অভ্যেস৷ সেই অভ্যেস বন্ধ করা যাবে না৷ এবার কলেজের প্ল্যাটিনাম জুবিলি৷ তার জন্য তাঁরা এ’বছর অন্য জায়গায় মেলার আয়োজন মেনে নিচ্ছেন৷ কিন্তু পরবর্তী সময়ে তা আর মানবেন না৷

এদিকে মালদা কলেজের প্ল্যাটিনাম জুবিলি অনুষ্ঠানের জন্য খানিকটা পিছিয়ে আসতে বাধ্য হয়েছে বইমেলা কর্তৃপক্ষ৷ আজ সন্ধেয় কলকাতা থেকে ফোনে অম্লানবাবু বলেন, ২২ থেকে ২৮ জানুয়ারি মালদা কলেজের বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান রয়েছে৷ সেই সব অনুষ্ঠানের কথা ভেবেই তাঁরা বইমেলার দিন পরিবর্তন করেছেন৷ নতুন সূচি অনুযায়ী এবার মেলা শুরু হচ্ছে ১৬ জানুয়ারি৷ চলবে ২২ জানুয়ারি পর্যন্ত৷ তাঁরা খোঁজ নিয়ে দেখেছেন, ওই সময় মালদা কলেজের তেমন কোনও বড়ো অনুষ্ঠান নেই৷ উত্তরবঙ্গের কোথাও সেই সময় বড়ো কোনও উৎসব নেই৷ সেকারণেই তাঁদের এই সিদ্ধান্ত৷ এনিয়ে তাঁরা ইতিমধ্যেই সমস্ত প্রকাশন সংস্থার সঙ্গে কথা বলেছেন৷


ছবিঃ মিসবাহুল হক #MaldaBookFair


হেডলাইন

প্রতিবেদন

কোয়রান্টিন সেন্টারে জন্মদিনের পার্টি, নজির গড়ল দীপান্বিতা

জন্মদিনের অনুষ্ঠানে বন্ধুদের বাড়িতে ডেকে খাওয়ানো নয়, পরিযায়ী শ্রমিকদের মধ্যে খাবার বিতরণ করে নজির সৃষ্টি করল ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রী। গত...

বিজ্ঞাপন

ফলো করুন
  • Facebook
  • Instagram
  • Twitter
  • YouTube
  • Pinterest

সব খবর ইনবক্সে!

প্রতিদিন খবরের আপডেট পেতে সাবস্ক্রাইব করুন

Aamader Malda Worldwide, the only media of your hometown and its thoughts. Here you can share and express your views and thoughts and you'll get here the essence of MALDAIYA CULT...

You can reach us via email or phone.  P +91 3512-260260  E response@aamadermalda.in

  • Facebook
  • Twitter
  • YouTube
  • Pinterest
  • Instagram
  • RSS

Copyright © 2020 Aamader Malda. All Rights Reserved.