বিজ্ঞাপন

লিপস্টিক আন্ডার মাই বোরখা

রানি লক্ষ্মীবাই যোজনায় তালাকপ্রাপ্ত মহিলাদের স্বনির্ভর করে তোলা এবং তাঁদের সন্তানদের লেখাপড়া শেখানোর পাশাপাশি হাতেকলমে কাজ শিখিয়ে ‘ভবিষ্যতের জন্য সক্ষম’ করে তোলার দায়িত্ব গ্রহণ করেছে উত্তরপ্রদেশের যোগী আদিত্যনাথ সরকার। কিন্তু বাকি রাজ্যে কি শুধুই কিছু সেমিনার আর স্ট্যাটাস বিপ্লব। সারাদেশে মুসলিম সম্প্রদায়ভুক্তদের মধ্যে ৫ শতাংশ মহিলা তিন তালাকের শিকার ইতিমধ্যেই।


সারাদেশে মুসলিম সম্প্রদায়ভুক্তদের মধ্যে ৫ শতাংশ মহিলা তিন তালাকের শিকার ইতিমধ্যেই।

‘তালাক’ ও তিন তালাক মুসলমান পুরুষদের প্রথা, যা মৌখিক ও যাতে স্ত্রী অনুমতির বা সাক্ষীর প্রয়োজন নেই। দু’ দু’বার তালাক দেওয়ার পরেও স্ত্রীর তিনমাস অপেক্ষা করার সময়ে (ইদ্দাহ) স্ত্রীকে ফেরত নেওয়া সম্ভব। প্রথমবার একবার তালাক বলবে, দ্বিতীয়বার দু’বার, তৃতীয়বার তিনবার বললেই স্থায়ী বিবাহবিচ্ছেদ। ইসলামে সবচেয়ে ধিক্কৃত একেবারে তিনবার তালাক বলে পুরুষের একতরফা বিবাহবিচ্ছেদের ‘ক্ষমতা’। স্বয়ং হজরত মহম্মদ এর বিরোধিতা করেছিলেন। বছর দুয়েক আগে ভারতীয় মুসলিম মহিলা আন্দোলন বা বিএমএমএ- এর তরফে একটি সমীক্ষা চালানো হয়। দেখা যায়, ৯২ শতাংশ মহিলাই তিন তালাকের বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন। অনুশাসনের বোরখার নীচে কোনোকালেই কি লিপস্টিকের বাসনারা ডানা মেলেনি? কিন্তু এই সময়টা সাহস দিয়েছে তা সামনে আনার। শুধু মুসলিম নারীরাই কেন, সামগ্রিকভাবে দেশে যেভাবে নারীদের উপর নির্যাতন চলছে, যেভাবে বাড়ছে ধর্ষণের ঘটনা, তাতে পুরুষতন্ত্রকে বিদ্ধ করে প্রশ্ন তোলাটাই এক অপরিসীম সাহসের কাজ। অথচ নারীদের অধিকার কিন্তু কম দেওয়া ছিল না মুসলিম আইনেও। যে আইন পুরুষকে নিঃশর্ত তিন তালাক দেওয়ার অধিকার দিয়েছে, সেই আইনই নারীকে দিয়েছে ‘তফরিক’ ও ‘খুল’। এই দুই প্রথার মাধ্যমেই কোনো নারী বিচ্ছেদ ঘোষণা করতে পারেন তাঁর স্বামীর বিরুদ্ধে। প্রথমটির ক্ষেত্রে নিয়ন্ত্রক হিসাবে থাকেন কোনো মান্য ধর্মগুরু। দ্বিতীয়টি অনেকটাই উদার। মিউচুয়াল কনসেন্টের মাধ্যমেই বিচ্ছেদ সম্পন্ন হতে পারে। কিন্তু তিন তালাকের রমরমার ভিতর কোথায় যেন হারিয়ে যাচ্ছে ‘তফরিক’ ও ‘খুল’। এই হল পুরুষতন্ত্রের চিরাচরিত দ্বিচারিতা, যা ধর্মনিরপেক্ষভাবে মহিলাদের অন্ধকারে রাখতে পছন্দ করে। মহিলাদের নির্ধারিত অধিকারগুলো নামকা ওয়াস্তে থাকে, নষ্ট ভ্রুণের মতো ভবিতব্য হয় তাদের।

বিবাহবিচ্ছেদের পুরুষতান্ত্রিক প্রক্রিয়া ইসলামের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ, এমন একটি যুক্তি স্বীকার করা কঠিন। যদি সেরকমই হত, তা হলে দক্ষিণ এশিয়ার দু’টি মুসলমান প্রধান দেশের দু’টিতেই, অর্থাৎ পাকিস্তান ও বাংলাদেশে তিন তালাক আইনিভাবে নিষিদ্ধ হল কী করে, সেই প্রশ্নটি অবান্তর নয়। বস্তত সারা বিশ্বের মুসলমান প্রধান দেশগুলির মধ্যে কুড়িটি দেশেই তিন তালাক বেআইনি। এতৎসত্ত্বেও একথা স্মরণে রাখা প্রয়োজন ধর্মীয় ভাবাবেগকে সম্পূর্ণ উপেক্ষা করে যুক্তির ভিত্তিতে আইন তৈরি হয় না। আসলে যে-কোনো প্রথাই প্যাট্রিয়ার্কির এক চতুর রাজনীতি, দুর্বলকে দমিয়ে রাখার। মুখ খোলার সাহস যদি সত্যিই সত্যিই কিছু বহুকালের বেয়াদপ মুখবন্ধের দুঃসাহস হয়ে উঠতে পারে, তবেই তো বৈষম্য অনুপ্রবেশের পথটুকুও রুদ্ধ হয়।

#AamaderDiary

21 views

বিজ্ঞাপন

MGH.jpg
পপুলার
1

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে মালদায় মৃত ১৬

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে মালদায় মৃত ১৬
2

চোরাই মোবাইল পাচারচক্রের হদিশ, ধৃত তিন

চোরাই মোবাইল পাচারচক্রের হদিশ, ধৃত তিন
3

সরানো হল মালদা সদর মহকুমাশাসককে

সরানো হল মালদা সদর মহকুমাশাসককে
4

কেন ইংলিশবাজার? নাম পরিবর্তনের ইচ্ছে বিজেপি প্রার্থীর

কেন ইংলিশবাজার? নাম পরিবর্তনের ইচ্ছে বিজেপি প্রার্থীর
5

ইংরেজবাজারে উদ্ধার মানুষের মাথার খুলি

ইংরেজবাজারে উদ্ধার মানুষের মাথার খুলি
Earnbounty_300_250_0208.jpg
At the Grocery Shop