আইনজীবীর স্বাক্ষর জাল করে ব্যাঙ্ক থেকে ঋণ
Header.jpg

আইনজীবীর স্বাক্ষর জাল করে ব্যাঙ্ক থেকে ঋণ

আইনজীবীর স্বাক্ষর জাল করে ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়া এবং সেই ঋণের টাকা শোধ না করার, তার উপর সেই আইনজীবীকে ফোন মারফৎ হুমকি দেওয়ারও অভিযোগ উঠেছিল এক প্রাক্তন পুলিশকর্মীর বিরুদ্ধে৷ এদিন মালদা জেলা আদালতে অভিযুক্ত সংশ্লিষ্ট আইনজীবীর উপর চড়াও হন সেই পুলিশকর্মী বলে অভিযোগ৷ সেই সময় আদালতে উপস্থিত মানুষজনের একাংশ চড়াও হয় অভিযুক্তের উপর৷ পরে জেলা আদালতের আইনজীবীরা অভিযুক্তকে আটকে রেখে পুলিশকে খবর দেন এবং তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেন।


অভিযুক্ত প্রাক্তন পুলিশকর্মীর নাম রতন সরকার৷ একসময় এএসআই পদে কর্মরত ছিলেন রায়গঞ্জ, ধুপগুড়ি, গাজোল সহ আরও অনেক জায়গায়৷ কিন্তু কোনও কারণবশত চাকরি যায় তাঁর৷ এরপর তিনি আইন নিয়ে পড়াশোনা করেন৷ সেই বিষয়ে স্নাতকও হন বলে সূত্র মারফত জানা গিয়েছে৷ বেশ কিছুদিন থেকে তিনি মালদা বার অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য হওয়ার চেষ্টা করছিলেন৷ তার জন্য তিনি সংগঠনে আবেদনও জানান৷ কিন্তু তাঁর নামে একাধিক মামলা রুজু থাকায় তাকে সংগঠনের সদস্য করার আগে চিন্তাভাবনা করার পরামর্শ দেন মালদা আদালতের আইনজীবী তথা বার অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য বিপুল দত্ত।

বিপুলবাবু এদিন বলেন, ২০১০ সালে রতন সরকার মকদুমপুরে একটি ফ্ল্যাট কেনে৷ সেই সময় তিনিই ওই ফ্ল্যাটের রেজিস্ট্রেশন করে দিয়েছিলেন৷ ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে তিনি জানতে পারেন, তাঁর স্বাক্ষর জাল করে এবং একই ফ্ল্যাটের দলিল দেখিয়ে এসবিআই-এর মালদা ব্র্যাঞ্চ থেকে সাড়ে ৩ লক্ষ, কানাড়া ব্যাংকের মালদা ব্র্যাঞ্চ থেকে ১০ লক্ষ টাকা ঋণ নেয় রতন৷ এলাহাবাদ ব্যাংকের মালদা শাখা থেকেও সে একই পদ্ধতিতে ঋণ নেয়৷ যদিও সেখান থেকে সে কত টাকা ঋণ নিয়েছিল সেটা তাঁর জানা নেই৷ সম্ভবত ব্যাংকের ঋণ শোধের কোনও ইচ্ছেই ছিল না তার৷ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ তাকে একাধিকবার ঋণ পরিশোধের নোটিশ পাঠালেও সে কোনো তোয়াক্কা করেনি৷ ব্যাংকের মাধ্যমেই তিনি রতনের কীর্তি জানতে পারেন৷ এরপর গত ১৬ মার্চ তিনি তার বিরুদ্ধে ইংরেজবাজার থানায় অভিযোগ দায়ের করেন৷ সেই অভিযোগের ভিত্তিতে রতনের বিরুদ্ধে মামলাও রুজু করে পুলিশ৷ কিন্তু তাকে গ্রেফতার করা যায়নি৷ পুলিশের চাকরি খোয়ার পরে রতন আইন পাশ করে এবং মালদা বার অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য হওয়ার জন্য আবেদন জানায়৷ সেকথা জানতে পেরেই তিনি সংগঠনের কর্তাদের গোটা বিষয়টি জানান৷ রতনকে যাতে সংগঠনের সদস্য করার আগে চিন্তাভাবনা করা হয় তার আর্জি রাখেন তিনি৷ কোনক্রমে এই খবর রতনের কানে পৌঁছায়৷ এরপর গত ২১ মার্চ সে তাঁকে ফোনে তুলে নিয়ে যাওয়ার হুমকি দেয়৷ এদিন রতন সংগঠনের সদস্য হতে আদালতে আসলে তাঁর মুখোমুখি হয়ে যায় সে৷ তাঁদের দু’জনের মধ্যে বচসা শুরু হয়৷ তখনই রতন তাঁকে শারীরিক নিগ্রহের চেষ্টা করে৷ যদিও অন্যান্য আইনজীবীদের হস্তক্ষেপে সে সফল হতে পারেনি৷ এরপর তাঁরা তাকে বন্দি করে ইংরেজবাজার থানায় খবর দেন৷ পুলিশকর্মীরা রতনকে ধরে থানায় নিয়ে যান৷

এদিকে আইনজীবীকে আক্রান্ত হতে দেখে আদালত চত্বরে উপস্থিত মানুষজনের একাংশ রতন সরকারের উপর চড়াও হয়৷ এনিয়ে অবশ্য বিপুলবাবু কিছু বলতে চাননি৷ তাঁর দাবি, এব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না।

ছবিটি প্রতীকী।

#DigitalDesk #Crime

হেডলাইন

প্রতিবেদন

ডিজিট্যাল যুগে বাধ সাধে নি লন্ঠন, যমজ বোনের সাফল্য উচ্চমাধ্যমিকে

বিদ‍্যুৎ পরিষেবা পেলেও আর্থিক সঙ্কট থাকায় বকেয়া বিল পরিশোধ করা সম্ভব হয়ে ওঠেনি। বাধ্য হয়েই তিন বছর ধরে লন্ঠনের আলোতেই পড়াশুনা চালিয়েছেন...

বিজ্ঞাপন

ফলো করুন
  • Facebook
  • Instagram
  • Twitter
  • YouTube
  • Pinterest

সব খবর ইনবক্সে!

প্রতিদিন খবরের আপডেট পেতে সাবস্ক্রাইব করুন

Aamader Malda Worldwide, the only media of your hometown and its thoughts. Here you can share and express your views and thoughts and you'll get here the essence of MALDAIYA CULT...

You can reach us via email or phone.  P +91 3512-260260  E response@aamadermalda.in

  • Facebook
  • Twitter
  • YouTube
  • Pinterest
  • Instagram
  • RSS

Copyright © 2020 Aamader Malda. All Rights Reserved.