বিজ্ঞাপন

তিন তালাকের শিকার মালদার নববধূ

তিন তালাক নিষিদ্ধ বলে ঘোষণা করেছে দেশের সর্বোচ্চ আদালত৷ সেই রায়ে দেশ জুড়ে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন মুসলিম মহিলারা৷ কিন্তু এখনও সেই কুপ্রথা চলছে বেশ কিছু এলাকায়। মালদা জেলা সেই সব জায়গাগুলির মধ্যে একটি। বিয়ের মাত্র ৯ মাস পর স্বামীর তালাকনামা হাতে এসেছে স্ত্রীর৷ তবে ১৯ বছরের স্ত্রীও ছেড়ে দেওয়ার পাত্র নন। তিনি দ্বারস্থ হচ্ছেন আইনের৷


ইংরেজবাজার থানার সাটটারি গ্রামে বসবাস আফসানা বিবির৷ বাবা নুর কালাম মোমিন পেশায় শ্রমিক৷ মাঝে মাঝেই ভিনরাজ্যে কাজে যান তিনি৷ মা নাগিনা বিবি গৃহবধূ৷ তাঁদের তিন ছেলে, দুই মেয়ে। আফসানা বড়ো মেয়ে৷ ২০১৭ সালের জুলাই মাসে দেখাশোনা করেই মুসলিম শরিয়ত আইন অনুযায়ী আফসানার বিয়ে হয়েছিল একই গ্রামের ওহেদুল মোমিনের সঙ্গে৷ ওহেদুলও পেশায় ভিনরাজ্যের শ্রমিক৷

আফসানার অভিযোগ, বিয়ের পর তিনি প্রথানুযায়ী স্বামীর বাড়িতে যান৷ ওহেদুলের সঙ্গে সংসার করতে শুরু করেন৷ কিন্তু কয়েকদিন পর থেকেই নানাভাবে তাঁর উপর অত্যাচার চালাতে শুরু করে তাঁর স্বামী ও তার বাড়ির লোকজন৷ তারা তাঁকে বাবার বাড়ি থেকে পণ আনার চাপ দিচ্ছিল৷ তাদের দাবি না মানায় তারা তাঁকে শারীরিক অত্যাচারও করে৷ কিন্তু তবুও তিনি বাপের বাড়ি চলে যাননি৷ শেষ পর্যন্ত তাঁকে তিন তালাক দেয় ওহেদুল৷ পরদিন সে তিন তালাকনামাও তাঁর হাতে ধরিয়ে দিয়ে বাড়ি থেকে বের করে দেয়৷ বাধ্য হয়ে তিনি বাবার বাড়িতে চলে আসেন৷ তবে তিনি হাল ছাড়েননি৷ এই তালাক মানতে রাজি নন তিনি, স্বামীর সঙ্গেই সংসার করতে চান৷ তাই তিনি জেলা আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন৷

আফসানার আইনজীবী সুদীপ্ত গঙ্গ্যোপাধ্যায় এপ্রসঙ্গে বলেন, তাঁর মক্কেল আফসানা বিবির অভিযোগ, বিয়ের পর থেকেই তাঁর স্বামী ও তার বাড়ির লোকজন তাঁর উপর শারীরিক ও মানসিক অত্যাচার চালাত৷ তারা তাঁকে বাবার বাড়ি থেকে পণ আনার জন্য চাপ দিত৷ পণ দিতে না পারায় ওহেদুল তার স্ত্রীকে তিন তালাক দেয় এবং রেজিস্ট্রি করে একটি তালাকনামাও পাঠায়৷ যেটা সম্পূর্ণ অবৈধ৷ সুপ্রিম কোর্ট এই প্রথাকে অবৈধ বলে ঘোষণা করেছে৷ তালাকনামা পাওয়ার পরেও আফসানা শ্বশুর বাড়ি ছাড়তে রাজি হননি৷ শেষ পর্যন্ত ওহেদুল ও তার বাড়ির লোকজন তাঁকে মারধর করে বাড়ি থেকে বের করে দেয়৷ কিন্তু আফসানা স্বামীর সঙ্গে সংসার করতে চান৷ সেকারণেই তিনি আইনের দ্বারস্থ হয়েছেন৷ তিনি আফসানাকে প্রথমে গোটা ঘটনা জানিয়ে ইংরেজবাজার মহিলা থানায় ওহেদুলের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করার পরামর্শ দিয়েছেন৷

এদিন নুর কালাম মোমিন জানান, আইনজীবীর পরামর্শে গতকাল রাতে এই ঘটনায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করতে মেয়েকে নিয়ে তিনি ইংরেজবাজার মহিলা থানায় যান৷ কিন্তু প্রথমে সেখানকার পুলিশ তাঁদের অভিযোগপত্র গ্রহণ করতে অস্বীকার করলেও এদিন অভিযোগপত্র জমা নিয়েছে।

ছবিটি প্রতীকী সৌজন্যে লিবার্টি ল।

#DigitalDesk #Crime

বিজ্ঞাপন

MGH-Advt.jpg
পপুলার
1

চোরাই মোবাইল পাচারচক্রের হদিশ, ধৃত তিন

চোরাই মোবাইল পাচারচক্রের হদিশ, ধৃত তিন
2

সরানো হল মালদা সদর মহকুমাশাসককে

সরানো হল মালদা সদর মহকুমাশাসককে
3

কেন ইংলিশবাজার? নাম পরিবর্তনের ইচ্ছে বিজেপি প্রার্থীর

কেন ইংলিশবাজার? নাম পরিবর্তনের ইচ্ছে বিজেপি প্রার্থীর
4

ইংরেজবাজারে উদ্ধার মানুষের মাথার খুলি

ইংরেজবাজারে উদ্ধার মানুষের মাথার খুলি
5

করোনায় আক্রান্ত রেলকর্মীর মৃত্যু, আতঙ্ক মালদা শহরে

করোনায় আক্রান্ত রেলকর্মীর মৃত্যু, আতঙ্ক মালদা শহরে
Earnbounty_300_250_0208.jpg
টাটকা আপডেট