ঝুলন্ত উদ্যান উপহার পেতে চলেছে মালদাবাসী

ব্যাবিলনের ঝুলন্ত উদ্যানের নাম শুনেছেন তো? কিংবা মুম্বইয়ের মালাবার হিলসের ঝুলন্ত উদ্যান দেখেছেন কখনো? এবার সেই ঝুলন্ত উদ্যান নির্মাণের পরিকল্পনা নিয়েছে ইংরেজবাজার পুরসভা। জঞ্জালমুক্ত সবুজ শহর হতে চলেছে ইংরেজবাজার৷ আর সেজন্য ব্যাবিলনের ন্যায় ঝুলন্ত উদ্যান তৈরির পরিকল্পনা করেছে ইংরেজবাজার পুরসভা৷ পুরপ্রধান নীহাররঞ্জন ঘোষ জানান শহরের প্রাণকেন্দ্র রথবাড়ি মোড়ে ওই উদ্যান তৈরির পরিকল্পনা করা হয়েছে। যদিও উদ্যানের স্থান নির্বাচন নিয়ে শুরু হয়েছে, বিতর্ক কারণ জায়গাটি পূর্ব রেলের এবং সারাবছর আবর্জনায় এলাকাটি ভরে থাকে৷ তৃণমূলের পুরপ্রধানের বিরোধী বলে পরিচিত প্রাক্তন পুরপ্রধান কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরি বলেন, প্রস্তাবিত স্থানে ঝুলন্ত উদ্যান করার অধিকারই পুরসভার নেই কারণ ওটা রেলের জায়গা৷ কৃষ্ণেন্দুবাবুর মন্তব্যের পাল্টা প্রতিক্রিয়া দিয়ে বর্তমান পুরপ্রধান নীহার ঘোষ বলেন, প্রস্তাবিত ঝুলন্ত উদ্যানের স্থানে পার্কিং জোন করার জন্য জলাটি কৃষ্ণেন্দুবাবুই ভরিয়েছিলেন তখনও সেটা রেলের জায়গা ছিল। উল্লেখ্য রথবাড়ি মোড়ে রেলগেটের ধারে একটি জলাভূমি কিছুদিন আগে ভরাট হয়েছিল পুরসভার উদ্যোগেই৷ সেই সময় পুরপ্রধান ছিলেন কৃষ্ণেন্দুনারায়ণ চৌধুরি৷ তিনি সে সময় জানিয়েছিলেন, শহরের মশার আঁতুরঘর হয়ে ওঠা এই পুকুরটিকে ভরাট করে পার্কিং জোন তৈরি করা হবে৷ বর্তমান পুরপ্রধান নীহাররঞ্জন ঘোষের বক্তব্য, ঝুলন্ত উদ্যানের তলায় প্রস্তাবিত পার্কিং জোন থাকবেই এবং তার উপরে ঝুলন্ত উদ্যান তৈরি করা হবে৷ এলাকাটির পরিমান প্রায় এক বিঘার মতো৷ সবুজ গাছপালা লাগানোর পাশাপাশি শিশু ও বয়স্কদের জন্য খেলা ও বিনোদনের ব্যবস্থা করা হবে৷ আরও অনেক কিছুই করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে এই ঝুলন্ত উদ্যান নির্মাণকে কেন্দ্র করে৷ নীহারবাবু জানান পুর এলাকাকে গ্রিন সিটি হিসাবে গড়ে তোলার পরিকল্পনা করছে পুরসভা৷


ঝুলন্ত উদ্যান উপহার পেতে চলেছে মালদাবাসী

স্থপতিদের সঙ্গে আলোচনা করে তার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে নীহারবাবু জানিয়েছেন৷ তিনি বলেন, ঝুলন্ত উদ্যান যে মালদহের গর্ব হবে একথা নিঃসন্দেহে বলা যেতে পারে৷ পুরসভা সূত্রে জানা গিয়েছে শহরের কোঠাবাড়ি থেকে মিশন ঘাট পর্যন্ত মহানন্দা নদীর ধার বরাবর সৌন্দর্য্যায়ন করা হবে। আলো, গাছপালা ছাড়াও তৈরি হবে ওয়াক ট্রেইল অর্থাৎ পায়ে হাঁটার রাস্তা৷ ওই রাস্তা দিয়ে গাড়ি এমনকি সাইকেল পর্যন্ত চলতে দেওয়া হবে না৷ হাঁটতে ভালোবাসেন এমন মানুষের জন্য তৈরি হবে ওই রাস্তা৷ এছাড়া শহরের জঞ্জাল প্রক্রিয়াকরণের স্থায়ী ব্যবস্থা হবে৷ পুরপ্রধান বলেন সমস্ত প্রকল্প হবে গ্রিন সিটি প্রকল্পের আওতায়৷ তিনি দাবি করেন যে পুরপ্রধান হওয়ার পরেই তিনি মুখ্যমন্ত্রীর কাছে এই পরিকল্পনা রেখেছিলেন৷ মুখ্যমন্ত্রী সবুজ সঙ্কেত দেওয়ার পর পুরমন্ত্রীর উদ্যোগে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে ইংরেজবাজার পুরসভাকে৷ ইতিমধ্যে গ্রিন সিটি প্রকল্পে ইংরেজবাজার পুরসভার জন্য ৪৫ কোটি টাকা মঞ্জুর করেছে পুর ও নগরোন্নয়ন দপ্তর৷ সেই টাকায় চারটি প্রকল্পের কাজে হাত দেওয়ার পরিকল্পনা করেছেন ইংরেজবাজার পুরসভা কর্তৃপক্ষ৷ মূলতঃ ঝুলন্ত উদ্যান, মহানন্দার ধারে সৌন্দর্য্যায়ন, শহরের ভিতরে প্রধান রাস্তা দ্বিমুখী করা এবং জঞ্জাল সাফাইয়ের স্থায়ী ব্যবস্থা রয়েছে ওই প্রকল্পগুলিতে৷ এই কাজগুলোর জন্য ই-টেন্ডার ডাকার প্রস্ত্ততি শুরু হয়েছে বলে পুরসভা সূত্রে খবর৷ সব কিছু ঠিকঠাক চললে অদূর ভবিষ্যতেই ঝুলন্ত উদ্যান উপহার পেতে চলেছে মালদাবাসী৷

প্রতীকী চিত্র।

1
রাতে 'কুপিয়ে' খুন হলেন দু’জন, মোতায়েন বিশাল পুলিশবাহিনী

Popular News

819

2
কফিনবন্দি দেহ ফিরল মালদায়, স্যালুট জানিয়ে শেষ শ্রদ্ধা পুলিশের

Popular News

905

3
গঙ্গায় মিশে যেতে পারে ফুলহর, বাজছে বিপদ ঘণ্টা

Popular News

862

4
আত্মীয়ের বাড়িতে এসে গ্রেফতার বাংলাদেশি

Popular News

1341

5
বাংলাদেশে পণ্য পাঠানো বন্ধ করে দিলেন মহদীপুরের এক্সপোর্টার্সরা

Popular News

908

পপুলার

বিজ্ঞাপন

টাটকা আপডেট
 

aamadermalda.in

আমাদের মালদা

সাবস্ক্রিপশন

যোগাযোগ

স্বত্ব © ২০২০ আমাদের মালদা

  • Facebook
  • Twitter
  • Instagram
  • YouTube
  • Pinterest
  • RSS