বিজ্ঞাপন

বানভাসি কৃষকদের ক্ষতিপূরণ আমলাদের পকেটে


বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের ক্ষতিপূরণের কথা ঘোষণা করেছিলেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ শুধু ঘোষণা করাই নয়, এই জেলার ক্ষতিগ্রস্ত ২ লক্ষ ৩৭ হাজার ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের আর্থিক ক্ষতিপূরণের জন্য ১১১ কোটি টাকা বরাদ্দ করে রাজ্য সরকার৷ মালদা শহরের কলেজ ময়দানে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে জেলায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের আর্থিক অনুদানের চেক তুলে দিয়ে ক্ষতিপূরণের সূচনা করেন খোদ কৃষিমন্ত্রী আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়৷ পরবর্তীতে বিভিন্ন ব্লক থেকে সেই চেক ক্ষতিগ্রস্ত চাষিদের হাতে তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়৷ কিন্তু এখান থেকেই শুরু হয় দুর্নীতি৷ ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের বদলে সরকারি ক্ষতিপূরণের টাকা ঢুকতে শুরু করে তৃণমূল নেতা ও সরকারি আমলাদের পকেটে৷ তার প্রমাণ মিলেছে বামনগোলা ব্লকে৷ এনিয়ে ব্লক কৃষি দপ্তর ও বিডিও’র কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন একাধিক ক্ষতিগ্রস্ত চাষি৷ অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে নিয়েছেন বিডিও৷ তিনি গোটা ঘটনার তদন্তের জন্য কৃষকদের অভিযোগ পত্র সদর মহকুমাশাসকের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন৷ যদিও অভিযুক্ত সরকারি আধিকারিকের বক্তব্য, তিনি কোনো বেনিয়ম করেননি৷ তবে চেক বিলিতে সামান্য কিছু ভুলত্রুটি হয়ে থাকতে পারে৷


বানভাসি কৃষকদের ক্ষতিপূরণ আমলাদের পকেটে

অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে নিয়েছেন বিডিও৷ তিনি গোটা ঘটনার তদন্তের জন্য কৃষকদের অভিযোগ পত্র সদর মহকুমাশাসকের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন৷

সাম্প্রতিক বন্যায় উত্তরবঙ্গের অন্যান্য জেলার সঙ্গে ভয়াবহ ক্ষতি হয়েছিল মালদার কৃষিক্ষেত্রেও৷ জেলার ১৫টি ব্লকের মধ্যে ১৩টি ব্লকই বন্যার জলে তলিয়ে গিয়েছিল৷ তা সরেজমিনে খতিয়ে দেখতে জেলায় আসেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ নিজেই ঘুরে দেখেছিলেন জেলার বন্যা পরিস্থিতি৷ বন্যার জল নেমে গেলে ক্ষয়ক্ষতির হিসাব করে জেলা কৃষি দপ্তর৷ সব মিলিয়ে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হন জেলার প্রায় ২ লক্ষ ৩৭ হাজার চাষি৷ তাঁদের ক্ষতিপূরণের জন্য মোট ১১১ কোটি টাকা বরাদ্দ করে রাজ্য সরকার৷ তার মধ্যে বামনগোলা ব্লকের জন্য বরাদ্দ হয় ৯ কোটি টাকা৷ ব্লক অফিস থেকে মূলত ক্ষতিপূরণের চেক বিলি হওয়ার কথা ছিল৷ সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী ১৩টি ব্লক অফিসেই সেই কাজ শুরু হয়৷

এখান থেকেই শুরু হয় দুর্নীতির খেলা৷ বামনগোলার চাঁদপুর, কাশিমপুর সহ বিভিন্ন গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের অভিযোগ, বন্যায় যাঁরা প্রকৃতই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিলেন, তাঁদের সবার নাম ক্ষতিপূরণের তালিকায় রাখা হয়নি৷ সেই তালিকায় ঠাঁই পেয়েছেন তৃণমূলের নেতা ও তাঁদের পরিবারের সদস্য, এমনকি যাঁদের নামে কোনো জমি নেই তাঁরাও৷ শুধু তাই নয়, কোনও ক্ষতিগ্রস্ত চাষি ক্ষতিপূরণের টাকা পেলেও তাঁকে সামান্য টাকা দেওয়া হয়েছে৷ সেই টাকা দিতেও সরকারি আমলার পকেট ভরতে হয়েছে৷ এক্ষেত্রে অভিযোগ সহকারী ডিরেক্টর অফ এগ্রিকালচার সনাতন দাসের বিরুদ্ধে৷ ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা জানান, সনাতনবাবুই এই দুর্নীতিতে প্রধান চক্রী৷

কেমন দুর্নীতি! চাঁদপুর অঞ্চলের শোনঘাট এলাকার বাসিন্দা পরিমল মণ্ডল৷ তিনি বামনগোলা পঞ্চায়েত সমিতির বিদায়ি তৃণমূল সদস্য৷ তাঁর দুই ছেলে জ্যোতিষ ও মনোজ৷ এক মেয়ে লিপিকা৷ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকায় তাঁদের ৪ জনেরই নাম রয়েছে৷ তাঁরা ৪ জন ক্ষতিপূরণের টাকা পেয়েও গিয়েছেন৷ অথচ জ্যোতিষ জানাচ্ছেন, তাঁর ভাই মনোজের নামে কোনো জমি নেই৷ ক্ষতিপূরণের তালিকা তৈরির সময় তিনি প্রায় আড়াই মাস ব্লক কৃষি দপ্তরে কাজ করেছিলেন৷ তাই এডিএ সাহেব তাঁকে ২২,১০০ টাকা চেক দিয়েছেন৷ লিপিকা মণ্ডলের বিয়ে হয়েছে ৭ বছর আগে৷ এলাকায় তাঁর নামেও কোনো জমি নেই৷ অথচ তিনিও ক্ষতিপূরণের চেক পেয়ে গিয়েছেন৷ একইভাবে এই দুর্নীতিতে নাম জড়িয়েছে এলাকার আরেক তৃণমূল নেতা সুনীল বিশ্বাসের৷ তাঁর বাবা নিরঞ্জন বিশ্বাস ও দুই ভাই অনিল এবং শিবশংকর৷ তাঁরাও ৪ জন ক্ষতিপূরণের চেক পেয়েছেন৷ অথচ অনিলবাবুর নিজের নামে কোনো জমিই নেই৷ এমন ভুরি ভুরি উদাহরণ রয়েছে গোটা ব্লক জুড়ে৷

প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত চাষিরা চাইছেন, এই দুর্নীতির পূর্ণাঙ্গ তদন্ত হোক৷ যাঁরা এই দুর্নীতিতে জড়িত তাঁদের সবার কঠোর শাস্তি হোক৷ তাঁদের অভিযোগ, এই দুর্নীতিতে এডিএ সনাতন দাস অন্তত এক কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন৷ যদিও সনাতনবাবুকে এনিয়ে চেপে ধরা হলে তিনি বলেন, তিনি কোনো বেনিয়ম করেননি৷ তবে প্রচুর চাষির তালিকা তৈরি করা হয়েছিল৷ সেক্ষেত্রে সামান্য কিছু ভুলভ্রান্তি হয়ে থাকতে পারে৷ বাকি সব প্রশ্নই এড়িয়ে যান তিনি৷ এপ্রসঙ্গে বামনগোলার বিডিও শুভঙ্কর মজুমদার বলেন, বন্যায় চাষিদের আর্থিক ক্ষতিপূরণের সমস্ত কাজ এডিএ অফিস থেকেই করা হয়েছে৷ তবে এক্ষেত্রে দুর্নীতির একাধিক অভিযোগ তাঁর কাছে এসেছে৷ তিনি অভিযোগগুলি সদর মহকুমাশাসকের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন৷ গোটা ঘটনায় মহকুমাশাসক তদন্তেরও নির্দেশ দিয়েছেন৷ এর বেশি তিনি কিছু বলতে পারবেন না৷

আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনের মুখে এই ধরনের কেলেঙ্কারি নিশ্চিতভাবেই বিরোধীদের হাতে অস্ত্র তুলে দেবে বলে মনে করছে এলাকার রাজনৈতিক মহল৷

#Misc #DigitalDesk

1 view

বিজ্ঞাপন

MGH.jpg
পপুলার
1

করোনায় মৃত ইংরেজবাজারের জয়েন্ট বিডিও

করোনায় মৃত ইংরেজবাজারের জয়েন্ট বিডিও
2

চাল পাচার করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়ল পুরকর্মী

চাল পাচার করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়ল পুরকর্মী
3

তিন দিনে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত দশ, শহরে খোলা শপিংমল

তিন দিনে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত দশ, শহরে খোলা শপিংমল
4

ভোট পরবর্তী হিংসায় উত্তপ্ত মালদার নেতাজি কলোনি, মোতায়েন পুলিশ

ভোট পরবর্তী হিংসায় উত্তপ্ত মালদার নেতাজি কলোনি, মোতায়েন পুলিশ
5

চকলেটের প্রলোভন দিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ, গ্রেফতার ব্যক্তি