বিজ্ঞাপন

অন্তঃসত্তা গৃহবধূ ও স্বামীকে মারধর, অভিযোগ প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে

হরিশচন্দ্রপুর থানার জগন্নাথপুর গ্রামে মাত্র ২ কাঠা জমি নিয়ে বিবাদ, তার জেরে এক অন্তঃসত্তা গৃহবধূ ও তাঁর স্বামীকে মারধর করার অভিযোগ উঠল প্রতিবেশীর বিরুদ্ধে। আক্রান্ত বধূ ও তাঁর স্বামী এখন মালদা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ঘটনাটি ঘটেছে। আক্রান্ত দম্পতির পরিবারের লোকজন পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন। কিন্তু এখনও কাউকে গ্রেফতার করতে পারেননি হরিশ্চন্দ্রপুর থানার পুলিশ।


অন্তঃসত্তা গৃহবধূ ও স্বামীকে মারধর

মালদা মেডিক্যাল কলেজে চিকিৎসাধীন ওই দম্পতিরা আহেদ আলি (৩০) ও তাঁর অন্তঃসত্তা স্ত্রী কানতারা বিবি (২৬)। জানা গিয়েছে, জগন্নাথপুর গ্রামে আহেদ আলির ২ কাঠা জমি রয়েছে। সেই জমি নিয়েই বেশ কিছুদিন ধরে আহেদের বিবাদ চলছিল প্রতিবেশী নাসিরুদ্দিন শেখের সঙ্গে। অভিযোগ, বৃহস্পতিবার সন্ধেয় নাসিরুদ্দিন শেখ ও তার দলবল জোর করে আহেদের ওই ২ কাঠা জমি দখলের চেষ্টা করে। সেই জবরদখলে বাধা দিতে যান আহেদ। এনিয়ে শুরু হয় বচসা। ধীরে ধীরে সেই বচসা হাতাহাতির পর্যায়ে পৌঁছে যায়। নাসিরুদ্দিন শেখের দলবল আহেদ আলিকে মারধর শুরু করে। স্বামীকে মারতে দেখে বাঁচাতে ছুটে আসেন স্ত্রী। অভিযোগ, অন্তঃসত্তা কানতারা বিবিকেও মাটিতে ফেলে ব্যাপক মারধর করে নাসিরুদ্দিন ও তার দলবল। স্থানীয়রা ছুটে এসে আহত দম্পতিকে উদ্ধার করে প্রথমে হরিশচন্দ্রপুর গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যান। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় রাতেই তাঁদের মালদা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এদিন আক্রান্তের পরিবারের পক্ষ থেকে হরিশচন্দ্রপুর থানায় নাসিরুদ্দিন শেখের ও তার দলবলের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। অভিযোগ পেয়েই ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ। তবে অভিযুক্তরা এলাকা থেকে পালিয়ে যাওয়ায় তাদের গ্রেফতার করা যায়নি।

বিজ্ঞাপন

MGH.jpg
পপুলার
1

চাল পাচার করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়ল পুরকর্মী

চাল পাচার করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়ল পুরকর্মী
2

তিন দিনে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত দশ, শহরে খোলা শপিংমল

তিন দিনে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত দশ, শহরে খোলা শপিংমল
3

ভোট পরবর্তী হিংসায় উত্তপ্ত মালদার নেতাজি কলোনি, মোতায়েন পুলিশ

ভোট পরবর্তী হিংসায় উত্তপ্ত মালদার নেতাজি কলোনি, মোতায়েন পুলিশ
4

চকলেটের প্রলোভন দিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ, গ্রেফতার ব্যক্তি

চকলেটের প্রলোভন দিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ, গ্রেফতার ব্যক্তি
5

পরীক্ষায় প্রতিদিন প্রায় ৫০ শতাংশ পজিটিভ, বেড বাড়ানো হচ্ছে মেডিকেলে

পরীক্ষায় প্রতিদিন প্রায় ৫০ শতাংশ পজিটিভ, বেড বাড়ানো হচ্ছে মেডিকেলে
Earnbounty_300_250_0208.jpg
টাটকা আপডেট