বিজ্ঞাপন

৬ গ্রামের মানুষের ভরসা নড়বড়ে বাঁশের সাঁকো

তিনটি স্কুলের পঠন-পাঠন বন্ধ করে দিলেন বাসিন্দারা। ক্ষোভ প্রতিশ্রুতির পরও নির্মাণ হয়নি বহু আকাঙ্ক্ষিত ফুট-ব্রিজ। ছটি গ্রামের বাসিন্দাদের যাতায়াতের একমাত্র ভরসা বাঁশের সাঁকো। তাই ক্ষুব্ধ হয়ে এলাকার প্রশাসনের সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ ছাড়া ছেলেমেয়েদের স্কুলে পাঠাবেন না বলে দাবি এলাকার বাসিন্দাদের। ঘটনাটি মালদার হরিশ্চন্দ্রপুর দুই নম্বর ব্লকের সাদলী চক গ্রাম পঞ্চায়েতের তিমির পুরা গ্রামের। দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে প্রশাসনের তরফে।


মালদা জেলায় হরিশ্চন্দ্রপুরের তিমিরপুরা গ্রামের উপর দিয়ে বয়ে গেছে জালাল নদী। এই নদীর সংলগ্ন তিমিরপুরা, বাসুদেবপুর, ফুটিয়াঘাট সহ ছটি গ্রামের বাসিন্দাদের যাতায়াতের একমাত্র পথ নদীর ওপর বাঁশের তৈরি সাঁকো। স্কুল ছাত্র-ছাত্রী থেকে গ্রামের মানুষ এমনকি অন্তঃসত্ত্বা মহিলাদেরও যাতায়াত করতে হয় এই নড়বড়ে সাঁকোর উপর দিয়ে। মাঝেমাঝেই ঘটে যায় দুর্ঘটনা। স্থানীয় মানুষদের অভিযোগ বারবার প্রশাসনকে জানালেও কোনও পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি প্রশাসনিক কর্তারা। এমনকি ব্রিজ নির্মাণের জন্য অর্থ বরাদ্দ হলেও শুরু হয়নি কাজ। তাই তিমিরপুরা প্রাথমিক বিদ্যালয় তিমিরপুরা জুনিয়র হাই স্কুল ও একটি শিশু শিক্ষা কেন্দ্র পঠন পাঠন বন্ধ করে দিয়ে আন্দোলনে নামলেন এলাকার বাসিন্দারা। ব্রিজ নির্মাণের কাজ শুরু না হওয়া পর্যন্ত এই আন্দোলন চলবে বলে দাবি তাদের।

এই ব্রিজ প্রসঙ্গে প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যান আশিস কুণ্ডু জানালেন, দ্রুত স্কুল খোলার ব্যবস্থা করা হবে। তিনি আরও বলেন এলাকার মানুষের কোনও দাবিদাওয়া থাকতেই পারে তবে পঠন-পাঠন বন্ধ করে দেওয়া দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা। এই বিষয়ে মালদা জেলা পরিষদের সভাধিপতি গৌড়চন্দ্র মণ্ডল বলেন, এলাকার মানুষের সাথে কথা বলে দ্রুত স্কুল খোলা হবে। ব্রিজ নির্মাণের জন্যও নেওয়া হবে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ।

বিজ্ঞাপন

MGH.jpg
পপুলার
1

চাল পাচার করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়ল পুরকর্মী

চাল পাচার করতে গিয়ে হাতেনাতে ধরা পড়ল পুরকর্মী
2

তিন দিনে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত দশ, শহরে খোলা শপিংমল

তিন দিনে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত দশ, শহরে খোলা শপিংমল
3

ভোট পরবর্তী হিংসায় উত্তপ্ত মালদার নেতাজি কলোনি, মোতায়েন পুলিশ

ভোট পরবর্তী হিংসায় উত্তপ্ত মালদার নেতাজি কলোনি, মোতায়েন পুলিশ
4

চকলেটের প্রলোভন দিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ, গ্রেফতার ব্যক্তি

চকলেটের প্রলোভন দিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ, গ্রেফতার ব্যক্তি
5

পরীক্ষায় প্রতিদিন প্রায় ৫০ শতাংশ পজিটিভ, বেড বাড়ানো হচ্ছে মেডিকেলে

পরীক্ষায় প্রতিদিন প্রায় ৫০ শতাংশ পজিটিভ, বেড বাড়ানো হচ্ছে মেডিকেলে
Earnbounty_300_250_0208.jpg
টাটকা আপডেট