অনুপনগরে ভাঙনে গঙ্গায় তলিয়ে গিয়েছে ১৮টি বাড়ি


কালিয়াচক ৩ ব্লকের পার অনুপনগর গ্রামে ভাঙনে ইতিমধ্যেই নদীতে তলিয়ে গিয়েছে ১৮টি বাড়ি৷ তলিয়ে যাওয়ার আগে নিজেদের বাড়িঘর সরিয়েও নিচ্ছেন অনেকে৷ ফরাক্কা ব্যারেজের দক্ষিণে আড়াআড়িভাবে প্রায় ৫০০ মিটার এলাকায় ভাঙন শুরু হয়েছে৷ গোটা বিষয়টি বিধানসভায় সেচমন্ত্রীকে জানিয়েছেন জেলার বিধায়ক মোত্তাকিন আলম৷ তাঁর দাবি, গঙ্গা ভাঙনের কথা স্বীকার করে নিয়েছেন মন্ত্রী৷ কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকারের অসহযোগিতায় তা রোধ করা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন তিনি৷


স্থানীয় মানুষজন সকাল থেকেই প্রাথমিক স্কুলের আসবাবপত্র, নথিপত্র সহ যাবতীয় জিনিসপত্র সরিয়ে নিতে শুরু করেছেন৷ কারণ, এদিন স্কুল থেকে গঙ্গার দূরত্ব দাঁড়িয়েছে মাত্র ১০ হাত৷

গতবারের পর এবারও কালিয়াচক ৩ ব্লকে গঙ্গার ভাঙন শুরু হয়েছে৷ ভূতনির পর এবার ভাঙন শুরু হয়েছে পার অনুপনগর গ্রামে৷ তবে শুধু সেখানেই নয়, স্থানীয়রা জানিয়েছেন, এবার ওপারের মুর্শিদাবাদ জেলার পুচপাড়া গ্রামেও ভাঙন শুরু হয়েছে৷ অনুপনগর গ্রামের ১৮টি বাড়ি গঙ্গাগর্ভে তলিয়ে গিয়েছে৷ পুচপাড়া গ্রামেরও হাসেম শেখ, রবি শেখদের বাড়ি এখন গঙ্গাগর্ভে৷ মালদা জেলা সেচ দপ্তরের এগজিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার প্রণবকুমার সামন্ত জানিয়েছেন, পার অনুপনগরের রাধাগোবিন্দ মন্দির এলাকা থেকে প্রাথমিক স্কুল পর্যন্ত এলাকায় ভাঙন হচ্ছে৷ প্রাথমিক স্কুলটি যে কোনও সময় নদীগর্ভে তলিয়ে যেতে পারে৷ স্কুলটিকে বাঁচানোর জন্য তাঁরা সেখানে ৯০ মিটার এলাকায় একটি অস্থায়ী বাঁধ নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন৷ এদিন থেকেই সেই কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে৷ যেহেতু ওই এলাকায় ভাঙনরোধের কাজের দায়িত্বে ফরাক্কা ব্যারেজ কর্তৃপক্ষ, তাই ছোটোখাটো কাজ ছাড়া তাঁদের কিছু করার নেই৷ তবে স্থানীয় মানুষজন এদিন সকাল থেকেই প্রাথমিক স্কুলের আসবাবপত্র, নথিপত্র সহ যাবতীয় জিনিসপত্র সরিয়ে নিতে শুরু করেছেন৷ কারণ, এদিন স্কুল থেকে গঙ্গার দূরত্ব দাঁড়িয়েছে মাত্র ১০ হাত৷

এদিকে মানিকচকের ভূতনিতে গঙ্গার ভাঙন নিয়ে বৃহস্পতিবার বিধানসভার প্রশ্নোত্তর পর্বে সেচমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কের মানিকচকের বিধায়ক মোত্তাকিন আলম জানতে চান, ২০১৬ সালে রাজ্য সরকার ভূতনিতে ভাঙনরোধের কাজ করবে বলে ঘোষণা করে৷ সেই কাজ কতদূর হয়েছে? বিধায়কের দাবি, তাঁর প্রশ্নে সেচমন্ত্রী জানান, এবারের গঙ্গা ভাঙনের জন্য রাজ্য সরকার সেখানে বাঁধ রক্ষা করার জন্য ৪৪ লক্ষ টাকা বরাদ্দ করেছে৷ সেখানেও ভাঙনরোধের কাজের দায়িত্বে রয়েছে ফরাক্কা ব্যারেজ কর্তৃপক্ষ৷ কিন্তু তারা সেই কাজ করছে না৷ এদিকে ভূতনির পুরোনো ও নতুন বাঁধের সংযোগস্থল একবার কেটে গেলে চরের প্রায় দেড় লক্ষ মানুষ সমস্যার মুখে পড়বেন৷ বিষয়টি তিনি জানেন৷ সেকারণেই তাঁরা তড়িঘড়ি সেখানে বাঁধ বাঁচানোর কাজ শুরু করার নির্দেশ দিয়েছেন৷

এদিকে পার অনুপনগরে এদিন দুপুরেও আগ্রাসী রূপ নিয়েছে গঙ্গা৷ ফের ত্রাহি রব ছড়িয়েছে এলাকায়৷ রীতি অনুযায়ী, জলস্তর বাড়া ও কমার সময় গঙ্গার পাড় ভাঙে৷ গঙ্গার জলস্তরও ক্রমবর্ধমান৷ এদিন সকালে গঙ্গার জলস্তর ছিল ২৩.৬২ মিটার৷ জেলার সেচকর্তা জানিয়েছেন, দু’একদিনের মধ্যেই তিনি ওই এলাকা পরিদর্শনে যাবেন৷

প্রতীকী ছবি।

#Misc #DigitalDesk #Kaliachak

1
রাতে 'কুপিয়ে' খুন হলেন দু’জন, মোতায়েন বিশাল পুলিশবাহিনী

Popular News

818

2
কফিনবন্দি দেহ ফিরল মালদায়, স্যালুট জানিয়ে শেষ শ্রদ্ধা পুলিশের

Popular News

904

3
গঙ্গায় মিশে যেতে পারে ফুলহর, বাজছে বিপদ ঘণ্টা

Popular News

862

4
আত্মীয়ের বাড়িতে এসে গ্রেফতার বাংলাদেশি

Popular News

1340

5
বাংলাদেশে পণ্য পাঠানো বন্ধ করে দিলেন মহদীপুরের এক্সপোর্টার্সরা

Popular News

907

পপুলার

বিজ্ঞাপন

টাটকা আপডেট
 

aamadermalda.in

আমাদের মালদা

সাবস্ক্রিপশন

যোগাযোগ

স্বত্ব © ২০২০ আমাদের মালদা

  • Facebook
  • Twitter
  • Instagram
  • YouTube
  • Pinterest
  • RSS